Logo
আজঃ বুধবার ২৪ জুলাই 20২৪
শিরোনাম

কলাপাড়ায় সবুজ ও ন্যায্য রূপান্তরের দাবিতে জমায়েত

প্রকাশিত:সোমবার ১৬ অক্টোবর ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ২৪ জুলাই 20২৪ | ২৮৯জন দেখেছেন

Image

কলাপাড়া (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি :  বেল্ট অ্যান্ড রোড ফোরাম এর সম্মেলনকে সামনে রেখে সবুজ ও ন্যায্য রূপান্তরের দাবিতে ১৬ অক্টোবর সোমবার সকাল ১১টায় পটুয়াখালীর কলাপাড়ার আন্দারমানিক নদীর তীরে এক জমায়েত অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৈদেশিক দেনা বিষয়ক কর্মজোট (বিডব্লিউজিইডি),উপকূলীয় জীবনযাত্রা ও পরিবেশ কর্মজোট (ক্লিন), প্রান্তজন, কলাপাড়া পরিবেশ ও জনসুরক্ষা মঞ্চ এবং আমরা কলাপাড়াবাসী যৌথভাবে এই জমায়েত আয়োজন করেছে।

কলাপাড়া পরিবেশ ও জনসুরক্ষা মঞ্চের সদস্য সচিব এবং কলাপাড়া পৌরসভার ১,২ ও ৩ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মনোয়ারা বেগম এর সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন কলাপাড়া প্রেস ক্লাবের সাধারন সম্পাদক এস, এম, মোশারফ হোসেন মিন্টু, পরিবেশ কর্মী মেজবাহ উদ্দিন মাননু ,নেছারউদ্দিন আহমেদ টিপু, মিলন কর্মকার রাজু, জসীম পারভেজ, মো.নাহিদুল হক,আমরা কলাপাড়াবাসী এর প্রতিষ্ঠাতা আল ইমরান এবং বর্তমান সভাপতি মো. নজরুল ইসলাম প্রমুখ ।  এ সময় বক্তারা বলেন, চীনা ঋণের সকল চুক্তি জনসম্মুখে প্রকাশ করতে হবে।

চীনা ঋণের আওতায় জীবাশ্ম জ্বালানিতে সকল বিনিয়োগ বন্ধ করতে হবে। বাস্তবায়িত প্রকল্পে পরিবেশ প্রতিবেশ মানবাধিকার শ্রমাধিকার রক্ষায় যথাযথ পদক্ষেপ নিতে হবে। বিভিন্ন বিদ্যুৎকেন্দ্রে ক্ষতিগ্রস্ত, নিহত ও আহতদের পরিবারকে যথাযথ ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। জীবাশ্ম জ্বালানি খাতে বিনিয়োগ বন্ধ করতে হবে।

 বাংলাদেশে ২০৫০ সাল নাগাদ শতভাগ নবায়ণযোগ্য জ্বালানি ব্যবহার নিশ্চিত করার লক্ষ্যে বিনিয়োগ করতে হবে। তারা আরো বলেন, আগামী ১৭ অক্টোবর থেকে চীনের বেইজিংয়ে তৃতীয় সম্মেলন শুরু হবে, ১৯০টিরও বেশি দেশকে আমন্ত্রন জানানো হয়েছে এই সম্মেলনে।

 ২০১৬ সালে চিনের ‘বেল্ট অ্যান্ড রোড’ প্র্রকল্পে যোগ দেয় বাংলাদেশ। অনেকের ধারণা চীন এই প্র্রকল্পের মাধ্যমে স্বল্পোন্নত এবং দরিদ্র দেশগুলোতে বিশাল অর্থ বিনিয়োগ করে দেশগুলোকে ঋণের ফাঁদে ফেলতে চায়। এর জ্বলজ্যান্ত উদাহরণ শ্রীলঙ্কার হামবানটোটা বন্দর। এছাড়াও লাওস, অ্যাংগোলা, জিবুতি, কেনিয়া, মালদ্বীপ,পাকিস্তান ইতোমধ্যে চীনের ঋণের ফাঁদে পড়ে গিয়েছে।

এই প্র্রকল্পের অর্থায়নে যাতে বাংলাদেশকে কোনও ঋণের জালে জড়িয়ে না ফেলে সে দিকেও বাংলাদেশকে সতর্ক থাকতে হবে। এই প্র্রকল্পের আওতায় বিশ্বজুড়ে দরিদ্র দেশগুলোর অবকাঠামো খাতে ব্যাপক বিনিয়োগের মাধ্যমে চীন আধিপত্য বিস্তার করে চলছে।


আরও খবর



কোটা আন্দোলনকারীদের ওপর হামলা, দেশের বিভিন্ন মহাসড়ক অবরোধ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৩ জুলাই ২০২৪ | ৩৬জন দেখেছেন

Image

চ্যানেল 23 ডেস্ক:


কোটা সংস্কারের দাবিতে চলমান আন্দোলনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার প্রতিবাদে দেশের বিভিন্ন সড়ক ও মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ শুরু হয়েছে।



মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) সকালে বিভিন্ন সড়ক-মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করছেন আন্দোলনকারীরা। ইত্তেফাকের প্রতিনিধিদের পাঠানো তথ্যে এসব জানা গেছে।



রাজধানী: 


কোটা সংস্কারের দাবিতে রাজধানীর বাড্ডা এলাকায় সড়ক অবরোধ করেছেন ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। মঙ্গলবার সকালে সাড়ে ১০টার দিকে তারা বাড্ডা এলাকায় তাদের ক্যাম্পাসের সামনের সড়ক অবরোধ করে।



ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের বাড্ডা জোনের অ্যাসিস্ট্যান্ট কমিশনার রাজন কুমার সাহা বলেন, শিক্ষার্থীরা সড়কের একপাশ বন্ধ করে বিক্ষোভ করছেন। সকাল সাড়ে ১০টার দিক থেকে তারা বিক্ষোভ শুরু করেন।


ময়মনসিংহ:


 সারা দেশে শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা, বক্তব্য প্রত্যহার ও কোটা প্রথার যৌক্তিক সমাধানের দাবিতে ময়মনসিংহে বিক্ষোভ চলছে। ময়মনসিংহ-টাঙ্গাইল সড়কের প্রবেশ মুখ নগরের টাউনহল মোড় এলাকা অবরোধ করছেন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা।



 এতে বিভিন্ন স্কুল-কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অন্তত তিন হাজার শিক্ষার্থী অংশ নিয়েছেন। মঙ্গলবার বেলা ১১টায় টাউনহল এলাকায় বিক্ষোভ শুরু হয়। সোমবার (১৫ জুলাই) দিনভর ও রাতে অনলাইন ক্যাম্পেইন শেষে জড়ো হন সাধারণ শিক্ষার্থীরা।


বেলা ১১টায় নির্ধারিত সময় থাকলেও তার আগেই জড়ো হতে থাকেন শিক্ষার্থীরা। স্লোগান দিয়ে শিক্ষার্থীরা এসে টাউনহলের কর্মসূচিতে যোগ দেন। আনন্দমোহন কলেজ, নাসিরাবাদ কলেজ, মুমিনুন্নিসা সরকারি মহিলা কলেজ, কবি নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়সহ শহরের বিভিন্ন স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীরাও এতে অংশ নেন।



ময়মনসিংহ-টাঙ্গাইল সড়ক অবরোধ করেন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা। ছবি: সংগৃহীত

ময়মনসিংহ-টাঙ্গাইল সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ সমাবেশে নেতৃত্ব দেন ছাত্র ইউনিয়ন ময়মনসিংহ জেলা শাখার সভাপতি গোকুল সুত্রধর মানিক। এ সময় আশপাশে অসংখ্য পুলিশ মোতায়েন ছিল। 



শিক্ষার্থীদের অবরোধের কারণে টাউন হল এলাকা থেকে শহরের অভ্যন্তরীণ সড়কেও যানচলাচল বন্ধ থাকে।


ময়মনসিংহ কোতোয়ালি মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আনোয়ার হোসেন বলেন, আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের অবরোধের কারণে ময়মনসিংহ-টাঙ্গাইল সড়কের প্রবেশ মুখ অবরুদ্ধ রয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।


খুলনা: 



কোটা পদ্ধতি সংস্কার ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের বিভিন্ন স্থানে শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার প্রতিবাদে খুলনায় সড়ক অবরোধ করেছে শিক্ষার্থীরা। মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে নগরীর দৌলতপুর নতুন রাস্তা মোড়ে সরকারি বিএল কলেজের শিক্ষার্থীরা সড়ক অবরোধ করেন। 



এ সময় ওই এলাকায় তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়। শিক্ষার্থীরা এ সময় কোটা পদ্ধতি সংস্কারের দাবিতে স্লোগান দেয়।


অপরদিকে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে নগরীর শিববাড়ী মোড়ে একই দাবিতে নর্দদার্ন ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থীরা সড়ক অবরোধ করেন।


বগুড়া: 



সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ এবং হামলার ঘটনায় বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) শিক্ষার্থীরা কলেজের সামনে বিক্ষোভ করে বগুড়া-রংপুর মহাসড়ক অবরোধ করেছেন।



 এক ঘণ্টা ধরে এই অবরোধ চলার একপর্যায়ে পুলিশ তাদের মহাসড়ক থেকে সরিয়ে দিয়েছে। শজিমেক ফাঁড়ির ইনচার্জ মিলাদুননবী বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।


মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে শজিমেক এর শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ করে বগুড়া-রংপুর মহাসড়ক অবরোধ করেন। এরপর তারা বিভিন্ন শ্লোগান দিতে থাকেন। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে পুলিশ এসে তাদের সরিয়ে দেয়।


শজিমেক পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পরিদর্শক মিলাদুননবী জানান, তারা এক ঘণ্টা অবরোধ করার পর সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।



রাজশাহী:



  রাজশাহী-ঢাকা বাইপাস সড়ক অবরোধ করেছেন বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। অন্যদিকে কোটার আন্দোলনের নামে মুক্তিযুদ্ধ ও মুক্তিযোদ্ধাদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা শহরের সাহেববাজার জিরোপয়েন্টে বিক্ষোভ সমাবেশ শুরু করেছেন। এতে বাইপাস সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে।


এর আগে কোটা সংস্কার দাবিতে আন্দোলনকারীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলার প্রতিবাদে মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) সারা দেশের সব ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ সমাবেশ ডেকেছে বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলন।



 সোমবার (১৫ জুলাই) রাতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদুল্লাহ হলের সামনে এক সংবাদ সম্মেলনে কর্মসূচি ঘোষণা দিয়ে বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলনের সমন্বয়ক নাহিদুল ইসলাম।




আরও খবর



কোটা আন্দোলনকারীদের নতুন কর্মসূচি ঘোষণা

প্রকাশিত:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৩ জুলাই ২০২৪ | ৫৭জন দেখেছেন

Image

চ্যানেল 23 প্রতিবেদক:



সারাদেশে কোটা আন্দোলনকারীদের ওপর পুলিশ ও ছাত্রলীগের হামলার ঘটনায় নতুন কর্মসূচি ঘোষণা দিয়েছেন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা। 



বুধবার (১৭ জুলাই) দুপুর ২টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে ‘গায়েবানা জানাজা ও কফিন মিছিল’ করবেন তারা।



মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) দিবাগত রাত সোয়া ১২টায় বিষয়টি নিশ্চিত করেন আন্দোলনের অন্যতম সমন্বয়ক আসিফ মাহমুদ।


গণমাধ্যমে প্রেরিত বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, আজকে (মঙ্গলবার) পুলিশ ও ছাত্রলীগের যৌথ হামলা ও গুলিবর্ষণে শহীদ ভাইদের জন্য আগামীকাল বুধবার (১৭ জুলাই) দুপুর ২টায় রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে ‘গায়েবানা জানাজা ও কফিন মিছিল’ অনুষ্ঠিত হবে।


আপনারা সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও জেলায় জেলায় গায়েবানা জানাজা ও কফিন মিছিল পালন করুন। ঢাকায় অবস্থানরত সকলে রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে সময়মতো চলে আসুন।


এর আগে মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) সন্ধ্যায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকার ভিসি চত্বর থেকে নতুন কোনো কর্মসূচি ঘোষণা না করে চলে যান কোটা সংস্কার আন্দোলনের অন্যতম সমন্বয়কারী হাসনাত আব্দুল্লাহ।


তিনি বলেন, আজকের মতো এখানে আন্দোলন স্থগিত ঘোষণা করছি। আমরা আলোচনা করে পরবর্তী কর্মসূচির সিদ্ধান্ত নেব। সেটি পরে আপনাদের জানিয়ে দেয়া হবে।


প্রসঙ্গত, মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) দিনভর সারাদেশে কোটা আন্দোলনকারী ও ছাত্রলীগের মধ্যে সংঘর্ষে ৬ জন নিহত হন। যার মধ্যে রাজধানীতে দুজন, চট্টগ্রামে তিনজন এবং রংপুরে একজন।



আরও খবর



আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামী গ্রেফতার

প্রকাশিত:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২৪ জুলাই 20২৪ | ৪১জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক :

গতকাল ১৬ জুলাই ২০২৪  তারিখ র‌্যাব-১০ এর একটি আভিযানিক দল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে  দুপুর আনুমানিক ১:২০ মিনিটে রাজধানী ঢাকার যাত্রাবাড়ী থানাধীন ফারুক রোড এলাকা হতে গণহত্যা, মানবতাবিরোধী ও যুদ্ধাপরাধী আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত দীর্ঘদিন যাবৎ পলাতক আসামী শেখ রফিকুল ইসলাম বাবুল (৭৫)’কে গ্রেফতার  করেছে র‌্যাব-১০।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে, গ্রেফতারকৃত আসামী উল্লেখিত অপরাধের সাথে তার সম্পৃক্ত থাকার কথা স্বীকার করেছে। জিজ্ঞাসাবাদে আরও জানা যায় আসামী শেখ রফিকুল ইসলাম বাবুল গ্রেফতারী পরোয়ানা মামলার রায় ঘোষনার পর হতে রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় বিভিন্ন ছদ্মবেশ ধারণ করে আত্মগোপন করে ছিল। গ্রেফতারকৃত আসামীকে সংশ্লিষ্ট থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।


আরও খবর



আজ পবিত্র আশুরা

প্রকাশিত:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৩ জুলাই ২০২৪ | ৫১জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:


‘ত্যাগ চাই, মর্সিয়া ক্রন্দন চাহি না’। ফিরে এলো আজ সেই মোহররম মাহিনা...। আজ মহরমের দশম তারিখ, পবিত্র আশুরা।



 ইসলামের ইতিহাসে আশুরা এক অসামান্য তাৎপর্যে উজ্জ্বল। ইবাদত-বন্দেগির জন্যও এই দিবস অতুলনীয়। সবকিছু ছাপিয়ে কারবালার মর্মন্তুদ সকরুণ শোকগাঁথা এই দিবসকে গভীর কালো রেখায় উৎকীর্ণ করে রেখেছে। 



৬১ হিজরি সালের এই দিনে হজরত মুহাম্মদ সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের প্রাণপ্রিয় দৌহিত্র হজরত ইমাম হোসাইন (রা.) ও তার পরিবারের সদস্যরা ইয়াজিদের সৈন্যদের হাতে কারবালার ময়দানে শহিদ হন। পবিত্র আশুরা তাই মুসলিম উম্মাহর জন্য এক তাৎপর্যময় ও শোকাবহ দিন।



 দিনটি মুসলমানদের কাছে সত্য ও ন্যায় প্রতিষ্ঠারও দিন। দিনটি আল্লাহ রব্বুল আলামিনের কাছে খুবই প্রিয়। তাই তিনি এই দিনে রোজা পালনের সওয়াব প্রদান করে থাকেন বহুগুণে। মুসলমানদের কাছে বিগত বছরের গোনাহর কাফফারা হিসেবে মহরমের দুটি রোজা রাখা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। 



হজরত আবু হুরায়রাহ (রা.) থেকে বর্ণিত আছে, হজরত মুহাম্মদ সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন: মাহে রমজানের পর সর্বোত্তম রোজা হলো আল্লাহর প্রিয় মহরম মাসের রোজা এবং ফরজ নামাজের পর সর্বোত্তম সালাত হলো রাতের (তাহাজ্জুদ) নামাজ (সহিহ মুসলিম)। 



রসুল সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম যখন মদিনায় আগমন করলেন, তিনি আশুরার দিনে ইহুদিদের রোজা পালন করতে দেখলেন। ‘ইবনে আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত আছে, রসুল সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম মদিনায় এসে দেখলেন যে, ইহুদিরা আশুরার দিনে রোজা পালন করছে। 



তিনি তাদের জিজ্ঞেস করলেন, এটা কোন দিন যে তোমরা রোজা পালন করছ? তারা বলল, এটা এমন এক মহান দিবস, যেদিন আল্লাহ হজরত মুছা (আ.) ও তার সম্প্রদায়কে নাজাত দিয়েছিলেন এবং ফেরআউনকে তার দলবলসহ ডুবিয়ে মেরেছিলেন।



 মুছা (আ.) শুকরিয়া হিসেবে এই দিনে রোজা পালন করেছেন। এ কারণে আমরাও রোজা পালন করে থাকি। এ কথা শুনে রসুল সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন :তোমাদের চেয়ে আমরা মুছা (আঃ)-এর অধিকতর ঘনিষ্ঠ ও নিকটবর্তী। অতঃপর রসুল সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম রোজা পালন করলেন এবং অন্যদের রোজা পালনের নির্দেশ দিলেন।



 (বুখারি ও মুসলিম)। আশুর নিয়ে বহু কথা, অনেক ইতিহাস প্রচলিত থাকলেও সহিহ বুখারি ও মুসলিমের হাদিস অনুযায়ী পবিত্র আশুরার দিনে মুসা (আ.) ও তার সাথিদের মুক্তি পাওয়া ছাড়া আর কোনো ঘটনা প্রমাণিত নয়। 



এই দিনে মহান আল্লাহ তার রসুল মুসা (আ.) ও তার সঙ্গী বনি ইসরাইলকে ফেরাউনের হাত থেকে উদ্ধার করেন এবং ফেরাউন ও তার সঙ্গীদের ডুবিয়ে মারেন। পবিত্র আশুরার দিন মুসলিম জাহানের জন্য এ কারণে সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ।



মহরম নিয়ে প্রচলিত কুসংস্কার :সাধারণ মানুষের মধ্যে মহরম মাস সম্পর্কে কিছু ভুল ধারণা প্রচলিত রয়েছে। যেমন—এই মাসে বিয়েশাদি না করা, নতুন ঘরবাড়ি নির্মাণ না করা, কোনো শুভ কাজ বা ভালো কাজের সূচনা না করা, গোশত না খাওয়া ও নিরামিষ আহার করা, পান না খাওয়া, নতুন কাপড় ও সুন্দর পোশাক পরিধান না করা, সাদা কাপড় বা কালো কাপড় তথা শোকের পোশাক পরা, সব ধরনের আনন্দ-উৎসব পরিহার করা—এ সবই কুসংস্কার।


আশুরাবিষয়ক মিথ্যা ও ভিত্তিহীন কথাবার্তা: ‘উড়িয়া যায়রে জোড়া কবুতর/ফাতেমা কেন্দে কয়, আজ বুঝি কারবালার আগুন লেগেছে মোর কলিজায়/ মা ফাতেমার কান্দন শুনে আরশ থেকে আল্লাহ কয়/যাওগো জিব্রিল বাতাস কর মা ফাতেমার কলিজায়/পুত্রশোকে কলিজা জ্বলে বাতাসে কি ঠাণ্ডা হয়....’ এই সমস্ত নগদ মিথ্যা কথা ও কেচ্ছা-কবিতা গানের আকারে আমাদের সমাজে প্রচলিত আছে।



 এগুলো যে মিথ্যা তার প্রমাণ হলো, মা ফাতেমা (রা.) মৃত্যুবরণ করেন ১১ হিজরিতে আর হুসাইন (রা.) শহিদ হন ৬১ হিজরিতে। দুই জনের মধ্যে প্রায় ৫০ বছরের ব্যবধান। এ ধরনের অসংখ্য মিথ্যা ও ভিত্তিহীন কথাবার্তা আমাদের সমাজে প্রচলিত আছে আশুরা ও মহররমকে কেন্দ্র করে। আল্লাহর রসুল সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হাদিসে মাতম করতে স্পষ্টভাবে নিষেধ করেছেন এবং বলেছেন, তাদের সঙ্গে আমাদের কোনো সম্পর্ক নেই, যারা বুক চাপড়ায়, কাপড় ছেঁড়ে এবং জাহেলি যুগের কথাবার্তা বলে।


পবিত্র আশুরা উপলক্ষ্যে বিভিন্ন সামাজিক, রাজনৈতিক ও ধর্মীয় সংগঠন নানা কর্মসূচি পালন করছে। এ উপলক্ষে বাংলাদেশ টেলিভিশন, বাংলাদেশ বেতার, বেসরকারি টিভি চ্যানেলসমূহ বিশেষ অনুষ্ঠানমালা প্রচার করছে। 



সংবাদপত্রসমূহ বিশেষ প্রবন্ধ-নিবন্ধ প্রকাশ করেছে। পবিত্র আশুরা উপলক্ষে আজ সরকারি ও বেসরকারি সব প্রতিষ্ঠান এবং সংবাদপত্রের অফিসসমূহে ছুটি থাকবে। পবিত্র আশুরা উপলক্ষে মসজিদ, মাদ্রাসা ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে বিশেষ আলোচনা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে। 



আশুরা উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, বিবৃতি দিয়েছেন।



আরও খবর

রাজধানীতে তাজিয়া মিছিল

বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪




জবি শিক্ষার্থীদের গণপদযাত্রা শুরু

প্রকাশিত:রবিবার ১৪ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২৪ জুলাই 20২৪ | ৯১জন দেখেছেন

Image



নিজস্ব প্রতিবেদক


সরকারি চাকরিতে কোটার যৌক্তিক সংস্কারের এক দফা দাবিতে গণপদযাত্রা কর্মসূচি শুরু করেছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা। 



রোববার (১৪ জুলাই) বেলা পৌনে ১১টার সময় ক্যাম্পাস থেকে সহস্রাধিক শিক্ষার্থী বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলনের ব্যানারে মিছিল নিয়ে বঙ্গভবন অভিমুখে যাত্রা শুরু করে।



কোটা সংস্কার আন্দোলনের জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সমন্বয়ক মেহেরুন্নেসা হিমু বলেন, আমাদের এ আন্দোলন কোনও রাজনৈতিক আন্দোলন নয়। আমাদের দাবি- দেশে অনগ্রসর জনগোষ্ঠীর কোটা ব্যতীত সব ধরনের অযৌক্তিক কোটা বাতিল করে সংসদে আইন প্রণয়ন মাধ্যমে কোটার বিষয়ে একটি স্থায়ী সমাধান করতে হবে।


এর আগে গতকাল সরকারি চাকরিতে কোটা পদ্ধতি সংস্কারের দাবিতে নতুন কর্মসূচি ঘোষণা করেছেন আন্দোলনকারীরা। রাজধানীতে তারা গণপদযাত্রা করে রাষ্ট্রপতি বরাবর স্মারকলিপি দেবেন। 


এতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, সাত কলেজসহ রাজধানীর উচ্চ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর শিক্ষার্থীরা অংশ নেবেন।


একই সময় আন্দোলনে থাকা সারা দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরাও গণপদযাত্রা করে নিজ নিজ জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে গিয়ে তার মাধ্যমে রাষ্ট্রপতি বরাবর স্মারকলিপি দেবেন।


ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় লাইব্রেরির সামনে গতকাল সন্ধ্যায় এক সংবাদ সম্মেলনে এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলনের অন্যতম সমন্বয়ক হাসনাত আবদুল্লাহ। 



এ সময় তিনি জানান, কোটার যৌক্তিক সমাধান না হওয়া পর্যন্ত তারা আন্দোলন চালিয়ে যাবেন।


আরও খবর