Logo
আজঃ শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

খাঁটি খেজুর গুড় চেনার উপায়

প্রকাশিত:রবিবার ২৪ ডিসেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১৫৪জন দেখেছেন

Image

শীত মানেই পিঠাপুলির উৎসব। আর গুড় পিঠার স্বাদকে বহুগুণ বাড়িয়ে তোলে। শীতে বেশিরভাগই গুড়ে পিঠা বানানো হয়। তবে আজকাল বাজারে ভেজাল গুড়ে ভরে গেছে। বাজারে নানা রকমের খেজুরের গুড় পাওয়া যায়। নামের সঙ্গে দামের ভিন্নতা রয়েছে। সব গুড় কি খেজুরের রস দিয়ে তৈরি? চলুন রাসায়নিক উপাদান মেশানো ভেজাল গুড় চেনার উপায় জেনে নেই।

গুড় কেনার সময় প্রথমে যা করবেন নলেন গুড় বলে দেওয়া হচ্ছে, তা অল্প করে একটু চেখে দেখবেন। যদি মনে হয়, গুড়ে রয়েছে নোনতা স্বাদ, তাহলে সেই গুড় না কেনাই ভালো। তাছাড়া পুরোনো গুড়ও স্বাদে খানিকটা নোনতা হয়। গুড় যত পুরনো তাতে লবণের মাত্রা তত বেশি।

গুড় কেনার সময় গুড়ের ধারটা দুই আঙুল দিয়ে চেপে দেখবেন। যদি নরম হয় তাহলে বুঝবেন ওই গুড় ভালো। সেই গুড়ে ভেজাল মেশানো নেই বললেই চলে।

যদি গুড় একটু তেতো স্বাদের হয়, তবে বুঝতে হবে ওই গুড় অনেকক্ষণ ধরে জ্বাল দেওয়া হয়েছে। এ কারণেই একটু তিতকুটে স্বাদ হয়েছে।

গুড় কেনার সময় তার রং অবশ্যই দেখে নেবেন। শুদ্ধ গুড়ের রং গাঢ় বাদামি হয়। রঙের হেরফের হলে বুঝতে হবে গুড়ে ভেজাল আছে। বিশেষ করে হলদে গুড় দেখলেই বুঝবেন তাতে রাসায়নিক উপাদান মেশানো হয়েছে।


আরও খবর

সঙ্গীকে বলা ঠিক নয় যেসব কথা

বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




কারামুক্ত মির্জা ফখরুল-আমীর খসরু

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ২৪জন দেখেছেন

Image

জামিনে কারামুক্ত হলেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী। বৃহস্পতিবার বিকেল পৌনে চারটার দিকে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার (কেরানীগঞ্জ) থেকে জামিনে মুক্তি লাভ করেন মির্জা ফখরুল ও আমীর খসরু।

ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের (কেরানীগঞ্জ) সিনিয়র জেল সুপার সুভাষ কুমার ঘোষ জানান, বিকাল পৌনে চারটার দিকে বিএনপির মহাসচিব ফখরুল ও আমীর খসরু কারাগারের মূল ফটক থেকে বেরিয়ে যান। তারা দু’জনই কারাগার থেকে জামিনে মুক্ত হলেন। উল্লেখ্য, গত ২৮ অক্টোবর রাজধানীতে বিএনপির মহাসমাবেশ ঘিরে সহিংসতা হলে ২৯ অক্টোবর মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে গুলশানের বাসভবন থেকে গ্রেফতার করে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।

এছাড়া গত ২ নভেম্বর দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরীকেও গুলশানের বাসা গ্রেফতার করা হয়। প্রধান বিচারপতির বাসভবনে হামলাসহ বিভিন্ন অভিযোগে পুলিশের করা মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয় বিএনপির এই দুই নেতাকে।


আরও খবর



জয়পুরহাটে হত্যা মামলায় ১৭ জনের যাবজ্জীবন

প্রকাশিত:বুধবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৪৬জন দেখেছেন

Image

জমি-জমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে জয়পুরহাটের পাঁচবিবির সালেহ মোহাম্মদ হত্যা মামলায় ১৭ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একইসঙ্গে তাদের প্রত্যেককে ১০ হাজার টাকা করে জরিমানাও করা হয়।

বুধবার (৭ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ-২ আদালতের বিচারক আব্বাস উদ্দীন এ রায় দেন। দণ্ডপ্রাপ্তদের বাড়ি জেলার পাঁচবিবি উপজেলার বিভিন্ন এলাকায়। এদের মধ্যে ২ জন পলাতক রয়েছেন। এছাড়া এ মামলা থেকে ৫ জনকে খালাস দেওয়া হয়েছে।

আদালত ও মামলার বিবরণে জানা গেছে, জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলার আয়মারসুলপুর চকপাড়া গ্রামের মৃত আলতাফের ছেলে সালেহ মোহাম্মদের সাথে আসামীদের দীর্ঘদিন থেকে জমি-জমা নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। এ সংক্রান্ত একটি মামলা আদালতে বিচারাধীন ছিল। এরই জের ধরে ২০০৯ সালের ২ মে সকালে সালেহ মোহাম্মদ তার নিজ শ্যালো মেশিন ঘর থেকে বাড়ি ফেরার পথে আসামি মোহাম্মদ আলীর বাড়ির সামনে ওৎ পেতে থাকা সকল আসামিরা তাকে ধরে নিয়ে গিয়ে আমগাছের সাথে হাত-পা বেঁধে দেশীয় অস্ত্র দিয়ে শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত করে।

এসময় সালেহ মোহাম্মদ পানি খেতে চাইলে আসামিরা পানির বদলে মরিচ গুলানো পানি জোড়পূর্বক পান করালে সে ছটফট করতে করতে নিস্তেজ হয়ে পড়ে। এরপর স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়ার পথে সে মারা যায়। এ ঘটনায় একই তারিখে পাঁচবিবি থানায় ২২ জনের নাম উল্লেখ করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন নিহতের ভাই আজিজুল হক। এ মামলার দীর্ঘ শুনানি শেষে আদালত এ রায় দেন।

যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত ১৭ আসামিরা হলেন- হাদিউজ্জামান প্রাং, আরিফুল, আবু নাছের প্রাং, শাহজাহান আলী, আশরাফ আলী প্রাং, লাল মোহাম্মদ, মোহাম্মদ আলী প্রাং, জহির প্রাং, শাসছুল আলম প্রাং, সায়েম উদ্দিন প্রাং, ওবাইদুল প্রাং, সইম প্রাং, রহিম প্রাং, আবু সাঈদ প্রাং, আবু বক্কর প্রাং, রানু বেগম ও সাহেরা বেগম।

এছাড়া খালাসপ্রাপ্ত ৫ আসামি হলেন- অমিছা বেগম, শহিদুল ইসলাম, বেলছি বেগম, হাফেজা ফকির ও সবদুল ফকির।


আরও খবর



নারী আসনে মনোনয়ন ফরম তুললেন নায়িকারা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৮৬জন দেখেছেন

Image

দ্বাদশ জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত নারী আসনে দলীয় মনোনয়ন ফরম বিক্রি শুরু হয়েছে। এরই মধ্যে আগ্রহীরা আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ভিড় করছেন। মঙ্গলবার সকাল ১০টা থেকে গুলিস্তানের বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউতে কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে দলীয় মনোনয়ন ফরম বিক্রি করছে আওয়ামী লীগ। এদিন মনোনয়ন ফরম তুললেন অপু বিশ্বাস, সোহানা সাবা ও নিপুন আক্তার।

সংবাদমাধ্যম অনুযায়ী, মঙ্গলবার (৬ ফেব্রুয়ারি) বেলা ১১টায় রাজধানীর গুলিস্তানে অবস্থিত আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয় থেকে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন অপু বিশ্বাস। এ সময় তিনি বলেন, রাজশাহী বিভাগের বগুড়া জেলা থেকে মনোনয়নপত্র কিনলাম আমি। আমার এলাকার মানুষ আমাকে অনেক সহযোগিতা করেছেন। দোয়া রাখবেন, আমি যেন এলাকার মানুষের পাশে দাঁড়াতে পারি। আর আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বপ্ন বাস্তবায়নে যেন কাজ করতে পারি।

তিনি আরও বলেন, নিজেকে রাজনীতির সঙ্গে জড়াতে পারা এবং মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষে থাকতে পারা আমার জন্য সৌভাগ্য বলে মনে করি। মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করলাম। বাকিটা মহান আল্লাহ তাআলার ইচ্ছা। এদিকে সকাল সোয়া ১০টার দিকে বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে অবস্থিত আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের দোতলা থেকে মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেন চিত্রনায়িকা সোহানা সাবা ।

ফরম সংগ্রহ শেষে সোহানা সাবা বলেন, আমার বাবা একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা। তিনি ১৩ বছর বয়সে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়েছেন। তিনি শুধু আওয়ামীলীগপন্থিই ছিলেন না, তিনি দেশপ্রেমিক ছিলেন। দেশের কথা ভাবলে আওয়ামী লীগের কথা ভাবতে হবে। 

এটা ছাড়া অন্য কোনো উপায় নেই। আমরা খুবই ভাগ্যবান যে টানা ১৫ বছর ধরে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আছে, ইনশাল্লাহ আরও পাঁচ বছরও থাকবে। সেজন্য আমি অবশ্যই চাই আওয়ামী লীগ থেকে প্রার্থী হতে।

এর আগে রাজনীতি করেছেন কি না এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সত্যি বলতে আমি খুব সংক্রিয়ভাবে রাজনীতি করিনি। কিন্তু নানা সময় নির্বাচনী প্রচারণায় আমি ছিলাম। আমি কখনো ভাবিনি যে, রাজনীতি করবো।

আওয়ামী লীগের ত্যাগী নেত্রীদের বাদ দিয়ে কেন আপনাকে মনোনয়ন দেওয়া হবে, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমিও কাজ করতে চাই বা করতে পারি। অনেকেই আমার থেকে বয়সে ও কাজে সিনিয়র আছেন। তার মানে এই নয় যে, নতুনরা কাজ করবে না বা এগিয়ে যাবে না। 

নতুনদেরও সামনের দিকে এগিয়ে যেতে হবে। সব জেনারেশন যদি হাতে হাত রেখে একসঙ্গে কাজ করে, তাহলে দেশের জন্য ভালো কিছুই হবে। মনোনয়ন পেলে কিভাবে মানুষের সেবা করবেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা নতুন জেনারেশন দেশ-বিদেশ ঘুরে বেড়াই। আমরা যা দেখি দেশকে ও দেশের মানুষকে সেভাবে দেখতে চাই।

সাধারণ মানুষের মতোই আমি হাঁটা-চলা করি। পাঁচ টাকার জিনিস আমি ফুটপাত থেকে কিনি। সেই অভিজ্ঞতাও আমার আছে। আমি সত্যিকারের খেটেখাওয়া মানুষ। আমি মানুষের জন্যই কাজ করবো। এদিকে সংরক্ষিত নারী আসনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন ফরম কিনেছেন অভিনেত্রী নিপুন আক্তার। তিনি সঙ্গে রিয়াজকেও নিয়ে গিয়েছিলেন সেখানে। 

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয় সূত্র বলছে, সকাল ১০টা থেকে বেলা ১১টা পর্যন্ত দেশের ৮টি বিভাগের ১৭১টি মনোনয়ন ফরম বিক্রি হয়েছে। এর মধ্যে প্রথম এক ঘণ্টায় সর্বোচ্চ মননের ফর্ম বিক্রি হয়েছে ঢাকা বিভাগে, ৫০টি। প্রথম ঘণ্টায় দ্বিতীয় সর্বোচ্চ মনোনয়ন ফরম বিক্রি হয়েছে চট্টগ্রাম বিভাগ থেকে, ৩৪টি। এ ছাড়া রাজশাহী বিভাগে ২২টি, খুলনা বিভাগের ১৭টি, ময়মনসিংহ বিভাগের ১৬টি, রংপুর বিভাগের ১৪টি, বরিশাল বিভাগের ১৩টি এবং সিলেট বিভাগে ৫টি মনোনয়ন ফরম বিক্রি হয়েছে।


আরও খবর

যে কারণে টাকা ফিরিয়ে দিলেন জয়া

বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

ঈধিকার পর এবার মিমি

মঙ্গলবার ২০ ফেব্রুয়ারী ২০24




সাবেক ডাচ প্রধানমন্ত্রী স্ত্রীকে নিয়ে স্বেচ্ছায় মৃত্যুবরণ করেন

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৩০জন দেখেছেন

Image

এক সঙ্গে ৭০ বছর কাটিয়ে দিলেন। কিন্তু তারপর আর বাঁচার ইচ্ছে হারিয়ে ফেলেন তারা। তাই দুইজন একসঙ্গে স্বেচ্ছায় মৃত্যুর সিদ্ধান্ত নেন। জীবনে রাষ্ট্র ক্ষমতা থেকে শুরু করে সব সুযোগ সুবিধা ভোগ করেন। তারপর কেনো তারা এমন সিদ্ধান্ত নিলেন।

এ জীবনের থেকে মরণও ভালো! একইসাথে এমন সিদ্ধান্তে পৌঁছেছিলেন নেদারল্যান্ডসের সাবেক প্রধানমন্ত্রী দ্রিস ভান অঘ্ট এবং তার স্ত্রী ইউজিনি। তাই ৭০ বছরের দাম্পত্য জীবনের ইতিও টানলেন একসাথে। হাতে হাত রেখে স্বেচ্ছায় মৃত্যুকে বরণ করে।

গত সোমবার দ্রিস-ইউজিনি আইনি পথে নিষ্কৃতি মৃত্যুর (ইউথেনেশিয়া) পথ বেছে নিয়েছেন বলে জানা গেল প্রেমের দিবসে। দু’জনেরই বয়স হয়েছিল ৯৩ বছর। দীর্ঘ দিন ধরে তারা বার্ধক্যজনিত নানা সমস্যায় ভুগছিলেন। দ্রিস একটি মানবাধিকার সংস্থার কর্ণধার ছিলেন। তাদেরই তরফে বিবৃতি প্রকাশ করে জানানো হয়েছে, কোনো ‘স্পেশাল ক্লিনিক’ নয়, গ্রামের বাড়িতেই নিষ্কৃতি মৃত্যুর পথ বেছেছেন দু’জনে।

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, মৃত্যুর সময়ও পরস্পরের হাত ধরে রেখেছিলেন দ্রিস-ইউজিনি। একইসাথে বিষ ইঞ্জেকশনের মাধ্যমে তারা মৃত্যুবরণ করেন।  ১৯৭৭ থেকে ১৯৮২ সাল পর্যন্ত নেদারল্যান্ডসের প্রধানমন্ত্রী পদে ছিলেন দ্রিস। ‘ক্রিশ্চান ডেমোক্র্যাটিক আপিল পার্টি’র প্রতিষ্ঠাতা নেতাও ছিলেন তিনি। নিষ্কৃতি-মৃত্যুর প্রবণতা ক্রমশই বাড়ছে নেদারল্যান্ডসে। গত বছর সরাকরি অনুমতি নিয়ে ২৯ যুগল স্বেচ্ছায় মৃত্যুবরণ করেছিলেন সে দেশে।


আরও খবর

ভেনেজুয়েলায় সোনার খনি ধসে নিহত ২৩ জন

বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরনী অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:শনিবার ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৪৭জন দেখেছেন

Image

 মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি : মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া ভাটেরচর দেওয়ান আব্দুল মান্নান  পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের ২০২৪ইং সালের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরনী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার  সকাল ১০.০০ঘটিকায় দেওয়ান আবদুল মান্নান পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরনী অনুষ্ঠিত হয়। 

অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন আফজাল হোসেন ও ফাতেমা আক্তার। প্রধান শিক্ষক  মুহাম্মদ শাহজাহান সিকদারের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত  ছিলেন শাখাওয়াত হোসেন, সভাপতি ভাটেরচর দেওয়ান আবদুল মান্নান পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নজরুল ইসলাম অভিভাবক সদস্য সফিকুল ইসলাম, অভিভাবক সদস্য, রেদোয়ান হোসেন মাসুম অভিভাবক সদস্য,মিন্টু খন্দকার অভিভাবক সদস্য।সালমা আক্তার সংরক্ষিত মহিলা সদস্য। মুহাম্মদ সোহরাব হোসেন দাতা সদস্য,  বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদ। 

সম্মানিত সকল শিক্ষক/শিক্ষিকাগন,এসময়  বিদ্যালয়ের সকল শিক্ষার্থীগন ও অনুষ্ঠানে উপস্থিত প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে  বলেন ক্রিয়াই শক্ত ক্রিয়াই বল, এই নিয়ে শিক্ষাংগন। সকল ছাত্রছাত্রীদের জন্য দোয়া ও শুভকামনা জানিয়ে তার বক্তব্য শেষ করেন


আরও খবর