Logo
আজঃ সোমবার ১৫ এপ্রিল ২০২৪
শিরোনাম

কানাডায় ‘প্রবাসে মাতৃভাষার চর্চা ও গণমাধ্যমের ভূমিকা’ শীর্ষক আলোচনা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২০ ফেব্রুয়ারী ২০24 | হালনাগাদ:সোমবার ১৫ এপ্রিল ২০২৪ | ১৭৫জন দেখেছেন

Image

কানাডার ক্যালগেরিতে ‘প্রবাসে মাতৃভাষার চর্চা ও গণমাধ্যমের ভূমিকা’ শীর্ষক এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রোববার স্থানীয় সময় ক্যালগেরিতে নর্থ ইস্টের ৩২ নম্বর এভিনিউতে আলবার্টার প্রথম বাংলা অনলাইন পোর্টাল ‘প্রবাস বাংলা ভয়েস’- এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

বাংলা ভয়েসের প্রধান সম্পাদক আহসান রাজীব বুলবুলের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন ইউনিভার্সিটি অফ ক্যালগেরি’র অধ্যাপক কাজী খালিদ হাসান, প্রধান বক্তা ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা প্রকৌশলী সুফল বৈরাগী, সাইফুল ইসলাম রিপন ও আব্দুল্লা রফিক। বিশেষ অতিথি ছিলেন বিশিষ্ট চিত্রশিল্পী জেরিন তাজ ও রম্য লেখক বায়াজিদ গালিব। আলোচনায় অংশ নেন শুকরুজ্জামান তুহিন, রুপক দত্ত, কিরণ বনিক শংকর, এ্যনথনি জ্যাকব, মো. মাহমুদ হাসান, মৌ ইসলাম, ফারজানা হক, জাকিয়া বেগম ও সৌভিক সাদমান।

বক্তারা বলেন, প্রবাসে মাতৃভাষা চর্চাকে আরও সূদৃঢ় করতে এবং মাতৃভূমির সঙ্গে পরবর্তী প্রজন্মের সেতুবন্ধন তৈরি করতে ভাষা শিক্ষার উপর গুরুত্বারোপ করেন। এছাড়াও প্রবাসে বাংলা ভাষার প্রসারে গণমাধ্যমের ভূমিকা নিয়ে আলোচনা করা হয়। মাতৃভাষা আর বাংলা সংস্কৃতির অবমাননা কিভাবে জাতীয় প্রগতির অন্তরায় হতে পারে, সে বিষয়েও বিশদ আলোচনা হয়। এছাড়াও সর্বস্তরে বিশুদ্ধ বাংলা চর্চার প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্বারোপ করা হয়। 

দেশের সঙ্গে প্রবাসে বাংলা ভাষা চর্চার গুরুত্ব তুলে ধরে বক্তারা বলেন, মাতৃভূমির সঙ্গে পরবর্তী প্রজন্মের সেতুবন্ধন তৈরিতে আমাদের কাজ করে যেতে হবে। বিদেশে আরও বেশি বাংলা গণমাধ্যমের বিস্তৃতি ঘটাতে হবে। যাতে পরবর্তী প্রজন্ম এসব গণমাধ্যমের পৃষ্ঠপোষকতায় এগিয়ে আসতে পারেন। সে ব্যাপারে এখন থেকেই সবার সচেষ্ট হওয়া উচিত। একুশের চেতনা, ইতিহাস আর সংস্কৃতিকে সযত্নে লালন করে কিভাবে একটি সুন্দর ভবিষ্যত প্রজন্ম গড়ে উঠতে পারে সে বিষয়েও জ্ঞানগর্ভ অভিমত দেন বক্তারা। 

বক্তারা আরও বলেন, ভাষার দাবির মধ্যেই নিহিত ছিল গণতন্ত্র, সাংস্কৃতিক স্বাধীকার জাতিসত্তা সম্পর্কে চেতনার উন্মেষ এবং জাতীয় আত্মনিয়ন্ত্রণের অধিকার অর্জনের সংগ্রামের বীজ। প্রবাসে শুধু শহীদ মিনার নির্মাণ করলেই হবে না, একুশের চেতনা নতুন প্রজন্মের মাঝে তুলে ধরতে হবে। আলোচনা শেষে ‘প্রবাস বাংলা ভয়েস’ এর পঞ্চম বর্ষপূর্তির প্রকাশনা বই উন্মোচন করা হয়।


আরও খবর



বুবলী-পরীর দ্বন্দ্ব নিয়ে এবার মুখ খুললেন বর্ষা

প্রকাশিত:সোমবার ২৫ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১৫ এপ্রিল ২০২৪ | ৫০জন দেখেছেন

Image

একমাত্র ছেলে শেহজাদ খান বীরের জন্মদিন উপলক্ষে কয়েকদিন আগেই একটি ভিডিও পোস্ট করে কটাক্ষের মুখে পড়েন ঢাকাই সিনেমার আলোচিত চিত্রনায়িকা শবনম বুবলী। ভিডিওটি প্রকাশের পরই তাকে ইঙ্গিত করে স্ট্যাটাস দেন চিত্রনায়িকা পরীমণি। এর অবশ্য জবাবও দেন বুবলী। এরপর আবার পাল্টা খোঁচা দিয়ে স্ট্যাটাস দেন পরীমণি।

বুবলী-পরীমণির এই ভার্চুয়াল যুদ্ধের মধ্যেই একই দিন বিকালে সোশ্যাল মিডিয়া ফেসবুকে একটি ইঙ্গিতমূলক পোস্ট করেন আরেক চিত্রনায়িকা অপু বিশ্বাস। পোস্টে এ নায়িকা লেখেন, ‘উফ কি সুন্দর ওয়েদার। বলার ভাষা নেই, আবেগ নেই, মিউজিক নেই, শুধু ছবিটাই আছে।’

সোশ্যাল মিডিয়ায় এভাবে যখন ভার্চুয়াল যুদ্ধ চলছে, সেই সময় এই ইস্যু নিয়ে কথা বললেন চিত্রনায়িকা আফিয়া নুসরাত বর্ষা। সম্প্রতি কেনাকাটা করার সময় সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলেন তিনি। এ সময় তিনি জানান, প্রতিযোগিতা হলে সেটি কেবলই কাজ নিয়ে হওয়া উচিত। ব্যক্তিচর্চায় কখনো সম্মান আসে না। বরং এতে আরও হিংসা-বিদ্বেষ তৈরি হয়।

বুবলী-পরীর মধ্যকার চর্চার ব্যাপারে জানতে চাইলে নায়িকা বর্ষা বলেন, আমি আসলে এসবের মধ্যে একদমই থাকতে চাই না। কারণ, আমারও সন্তান আছে। সন্তানদের প্রসঙ্গে এভাবে কথা বলা উচিত নয়। এসব যদি ভবিষ্যতে সন্তানরা দেখে, তাহলে লজ্জা পাবে তারা। তার ভাববে, মা ও তার কলিগরা কী করতো এসব? এ জন্য এসব এড়িয়ে চলা ভালো বলে মনে করি আমি।

এছাড়া আসন্ন ঈদ প্রসঙ্গ উঠতেই বর্ষা জানান, ঈদ কিংবা যেকোনো উৎসব-আয়োজনেই নিজ হাতে সবার জন্য রান্না করতে পছন্দ করেন তিনি। স্বামী অনন্ত জলিল তার রান্না পায়েস খেতে ভীষণ পছন্দ করেন। এ জন্য পায়েসই বেশি রান্না করা হয়। আর এবারের ঈদে পরিবার নিয়ে তুরস্ক পাড়ি জমাবেন। সেখানে ছুটি কাটাবেন এবং একই সঙ্গে সিনেমার কাজ করবেন বলেও জানান এ অভিনেত্রী।


আরও খবর



যেভাবে 'লাপাতা লেডিস'এ জীবন বদলে গেল প্রতিভার

প্রকাশিত:রবিবার ১৭ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১৫ এপ্রিল ২০২৪ | ৮৬জন দেখেছেন

Image

এক সাধারণ পরিবার থেকে উঠে এসে বলিউডে সংগ্রাম এবং আমির খান প্রযোজিত সিনেমা দিয়ে হলো বড় পর্দায় অভিষেক। গত ১ মার্চ প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেয়েছে ‘লাপাতা লেডিস’। কিরণ রাও নির্মিত ছবিটি প্রযোজনা করেছে আমির খান প্রোডাকশনস। মোটে ৫ কোটি রুপি ব্যয় হয়েছে ছবিটির পেছনে। বক্স অফিস থেকে এরই মধ্যে উঠে এসেছে প্রায় সাড়ে আট কোটি রুপি। সঙ্গে ভুয়সী প্রশংসা তো রয়েছেই। এই ছবির মুখ্য ভূমিকায় অভিনয় করেছেন প্রতিভা রান্তা। পুষ্পা রানি ও জয়া নামের দুটি চরিত্র ফুটিয়ে তুলেছেন তিনি। আর দুটো চরিত্রেই তার অভিনয় বাহবা কুড়াচ্ছে। 

প্রতিভা জানান, ‘দঙ্গল’ সিনেমা দেখার পর থেকেই স্বপ্ন দেখতেন, যদি আমির খানের সিনেমা দিয়ে তার অভিষেক হতো! সেটাই হলো। আর যেদিন ‘লাপাতা লেডিস’ ছবির খবরটি নিজের পরিবারকে জানান তিনি, সেদিন তার বাবা ভীষণ উচ্ছ্বসিত হয়েছিলেন। 

কিন্তু একজন একেবারে হাউমাউ করে কেঁদে দেন। তিনি প্রতিভার দাদি। প্রতিভার ভাষ্য, দাদি কাঁদতে কাঁদতে বলেন, ‘আগে তোকে আমরা কত আটকানোর চেষ্টা করতাম, আর তুই এখন আমাদের নাম উজ্জ্বল করছিস’। এটা আমার জন্য অনেক আবেগপূর্ণ মুহূর্ত ছিল। একটা ছোট শহরের পরিবারে সহজে ‘ভালোবাসি’ কথাটিও বলা যায় না। ফলে পরিবারের এমন আবেগ-উচ্ছ্বাস দেখে আমি কিছুটা অস্বস্তিতে পড়ে গিয়েছিলাম।

উল্লেখ্য, ‘লাপাতা লেডিস’ ছবিতে আরও অভিনয় করেছেন নিতাংশি গোয়েল, স্পর্শ শ্রীবাস্তব, ছায়া কদম, রবি কিষান প্রমুখ। আইএমডিবিতে ছবিটির রেটিং ১০-এর মধ্যে ৮ দশমিক ৪। ছবিটির প্রিমিয়ারে অংশ নিয়েছিলেন প্রতিভা রান্তার পরিবারের সদস্যরা। সেই আলো ঝলমলে আয়োজনে তারা সরল বাক্যেই স্বীকার করে নেন, কখনও মুম্বাই আসতে পারবেন, আমির খানের মতো তারকার সঙ্গে দেখা হবে, এসব কল্পনাও করেননি। সিমলার আপেল বাগান থেকে মুম্বাইয়ের এই গ্ল্যামার জগতের অভাবনীয় জার্নির পুরো কৃতিত্ব তাদের কন্যার, প্রতিভা রাস্তার।


আরও খবর



রজমানেও ফিলিস্তিনের গাজায় ইসরায়েলি বর্বরতা চলছেই, প্রাণহানি ছাড়াল ৩১৫০০

প্রকাশিত:রবিবার ১৭ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১৫ এপ্রিল ২০২৪ | ৬৬জন দেখেছেন

Image

পবিত্র রমজান মাসেও ফিলিস্তিনের গাজা উপত্যকায় ইসরায়েলি বর্বর হামলা অব্যাহত রয়েছে। সর্বশেষ গত ২৪ ঘণ্টায় ইহুদিবাদী সেনাদের হামলায় আরও ৬৩ ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছে। এতে করে উপত্যকাটিতে নিহতের মোট সংখ্যা ৩১ হাজার ৫০০ ছাড়িয়ে গেছে। এছাড়া গত বছরের ৭ অক্টোবর থেকে চলা এই হামলায় আহত হয়েছে আরও ৭৩ হাজারেরও বেশি ফিলিস্তিনি। 

গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে- শনিবার গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে- গাজায় ইসরায়েলের হামলায় গত ২৪ ঘণ্টায় অন্তত ৬৩ ফিলিস্তিনি নিহত ও আরও ১১২ জন আহত হয়েছে। মন্ত্রণালয় আরও জানায়, গত ২৪ ঘণ্টায় ইসরায়েলি দখলদার বাহিনী গাজা উপত্যকায় পরিবারগুলোর বিরুদ্ধে সাতটি গণহত্যা চালিয়েছে এবং এতে ৬৩ জন নিহত এবং আরও ১১২ জন আহত হয়েছে। অনেক মানুষ এখনও ধ্বংস স্তূপের নিচে এবং রাস্তায় আটকা পড়ে আছে কারণ উদ্ধারকারীরা তাদের কাছে পৌঁছাতে পারছেন না।

ফিলিস্তিনি স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষের মতে, ইন্টারন্যাশনাল কোর্ট অব জাস্টিসের একটি অস্থায়ী রায়কে লঙ্ঘন করে ইসরায়েল গাজা উপত্যকায় আগ্রাসন চালিয়ে যাচ্ছে। গত বছরের ৭ অক্টোবর থেকে চালানো বর্বর এই আগ্রাসনে অন্তত ৩১ হাজার ৫৫৩ ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছে। নিহতদের বেশিরভাগই নারী এবং শিশু। এছাড়া ইসরায়েলের নির্বিচার হামলায় আহত হয়েছে আরও ৭৩ হাজার ৫৪৬ জন।


আরও খবর



ত্রাণের অপেক্ষায় থাকা ফিলিস্তিনিদের ওপর ফের ইসরাইলের হামলা, নিহত ১৭

প্রকাশিত:রবিবার ৩১ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১৫ এপ্রিল ২০২৪ | ৫৬জন দেখেছেন

Image

গাজা ভূখণ্ডে ত্রাণের অপেক্ষায় থাকা ফিলিস্তিনিদের ওপর আবারও নির্বিচারে হামলা চালিয়েছে ইসরায়েলি সামরিক বাহিনী। এতে ১৭ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরও প্রায় ৩০ জন। রবিবার সকালে এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা। এর আগে ওই প্রতিবেদনে তাৎক্ষণিকভাবে নিহতের সংখ্যা ১২ বলে জানানো হয়েছিল। পরে তা বেড়ে ১৭ জনে দাঁড়িয়েছে।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, গাজার আল কুয়েত গোলচত্ত্বরে ত্রাণের অপেক্ষায় দাঁড়িয়ে থাকা ফিলিস্তিনিদের ভিড়ে গুলিবর্ষণ করে ইসরায়েলি দখলদাররা। সাহায্য চাওয়া ফিলিস্তিনিরা জানুয়ারি থেকেই ওই গোলচত্ত্বরে জড়ো হচ্ছেন এবং ইসরায়েলি হামলার শিকার হচ্ছেন। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, কয়েকটি চলন্ত ট্রাক থেকে খাবার পেতে চেষ্টা করে ফিলিস্তিনিরা। এ সময় ইসরায়েলি সেনারা গুলি চালায় এবং এতে বহু লোক হতাহত হন। হামলার পর কিছু আহত লোক মাটিতেও পড়ে ছিল।  

ইসরায়েলি সামরিক বাহিনী এর আগে খাদ্য ও সহায়তা সরঞ্জাম সরবরাহকারী ট্রাকের অপেক্ষায় থাকা ফিলিস্তিনিদের ওপর একাধিক বার বড় পরিসরে হামলা চালিয়েছে এবং এতে বহু সাহায্যপ্রার্থী ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন।

প্যালেস্টাইন রেড ক্রিসেন্ট জানিয়েছে, গত শুক্রবারেও কুয়েত গোলচত্ত্বরে হামলা চালায় ইসরায়েলিরা। সেদিন ত্রাণের পণ্য বহনকারী ট্রাকগুলি সেখানে জড়ো হয়েছিল। এটি দেখে হাজার হাজার ফিলিস্তিনি সেখানে ভিড় জমায়। এরপর সাহায্য বিতরণের সময় ইসরায়েলি সেনাদের গুলিতে ৫ ফিলিস্তিনি নিহত হন।


আরও খবর



ফিলিস্তিনকে স্বীকৃতি দিতে ‘প্রস্তুত’ স্পেনসহ ইউরোপের ৪ দেশ

প্রকাশিত:শনিবার ২৩ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১৫ এপ্রিল ২০২৪ | ৬৯জন দেখেছেন

Image

ফিলিস্তিন আলাদা রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দিতে সম্মত হয়েছে চার ইউরোপীয় দেশ স্পেন, আয়ারল্যান্ড, মাল্টা ও স্লোভেনিয়া। শুক্রবার ব্রাসেলসে ইউরোপীয় কাউন্সিলের বৈঠকের পর চার দেশের সম্মতির এ কথা জানান স্পেনের প্রধানমন্ত্রী পেদ্রো সানচেজ। 

পূর্ব জেরুজালেমকে রাজধানী করে আলাদা ফিলিস্তিনি রাষ্ট্র গঠন ফিলিস্তিনি জনগণের বহুদিনের স্বপ্ন। সাম্প্রতিক সময়ে বিষয়টি ব্যাপক আলোচনা পেয়েছে। স্পেনের প্রধানমন্ত্রী বলেন, কাউন্সিলের সমাবেশের ফাঁকে আইরিশ, মাল্টিজ এবং স্লোভেনিয়ান নেতাদের সঙ্গে বৈঠকের পর এই চুক্তি হয়েছে। তিন দেশের সঙ্গে মিলে ফিলিস্তিনকে রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়ার প্রথম পদক্ষেপ নিয়েছে স্পেন।

বৈঠকের পর এক যৌথ বিবৃতিতে আয়ারল্যান্ড বলেছে, দীর্ঘস্থায়ী শান্তি ও স্থিতিশীলতা অর্জনের একমাত্র উপায় হলো একটি দ্বি-রাষ্ট্রীয় সমাধান বাস্তবায়ন করা। তবেই শান্তি ও নিরাপত্তায় বসবাস করতে পারবে ইসরায়েলি ও ফিলিস্তিনিরা। ১৯৮৮ সাল থেকে জাতিসংঘের ১৯৩টি সদস্য রাষ্ট্রের মধ্যে ১৩৯টি ফিলিস্তিনি রাষ্ট্রকে স্বীকৃতি দিয়েছে।


আরও খবর