Logo
আজঃ শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

জনবল সংকট সত্বেও সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানায় ট্রেনের উৎপাদন কার্যক্রম বৃদ্ধি

প্রকাশিত:রবিবার ১১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৪৮জন দেখেছেন

Image

সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি: ব্যাপক জনবল সংকট ও বাজেটের সীমাবদ্ধতা সত্বেও দেশের বৃহত্তম সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানায় উৎপাদন কার্যক্রম বৃদ্ধি পেয়েছে। দিনে ৩ ইউনিট মেরামত লক্ষ্যমাত্রা থাকলেও কোচ মেরামতের ক্ষেত্রে লক্ষ্যমাত্রা (টার্গেট) ৪ ইউনিট ছাড়িয়ে গেছে।

নতুন নতুন রেলরুট চালু ও পদ্মা সেতুতে রেল সংযোগ চালু হওয়ায় যেমন কোচের চাহিদা বেড়েছে তেমনি নতুন ট্রেন চালু করতেও অনেক কোচের প্রয়োজন দেখা দিয়েছে। এ কারণে পুরাতন ট্রেন মেরামত ও নতুন ট্রেন সংযোজনের চাপ সৃষ্টি হয়েছে। ফলে জোগান দিতে কারখানায় এই কর্মতৎপরতা বৃদ্ধি পেয়েছে। 

রেলের সূত্র জানায়, বর্তমান সরকার রেলবান্ধব। ফলে সারাদেশে রেলপথ বাড়ানো হচ্ছে। পদ্মা সেতুতে রেল সংযোগ চালুর পর পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়েতে বেশ কিছু নতুন ট্রেন চালু হয়েছে। দিতে হচ্ছে কোচের জোগান। ফলে সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানার উপর চাপ বেড়েছে।

সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানার ক্যারেজ শপের (উপ-কারখানা) ইনচার্জ ও উপ-সহকারী প্রকৌশলী মোমিনুল ইসলাম বলেন, এখানে প্রতিদিন ৩ ইউনিট কোচ মেরামতের লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে। প্রতিদিন দুই ইউনিটে একটি পূর্ণাঙ্গ কোচ বুঝানো হয়। সেক্ষেত্রে আমরা চলতি অর্থ বছরে জুলাই থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত ৬ মাসে ৩১৭টি কোচ মেরামত করেছি। অর্থাৎ প্রতিদিন ৪ ইউনিট মেরামত কাজ হয়েছে।

কারখানা সূত্র জানায়, সৈয়দপুর কারখানায় চরম লোকোবল সংকট রয়েছে। এখানে দুই হাজার ৮৫৯ জনের স্থলে লোকোবল রয়েছে মাত্র ৮২০ জন। কারখানার ২৮টি উপ-কারখানায় (শপ) উৎপাদন চলছে সীমিত সংখ্যক লোক নিয়ে। মাত্র ২৮ শতাংশ লোক কর্মরত আছেন ১১০ একর জমির উপর গড়ে ওঠা বিশাল ওই কারখানাটিতে। 

এছাড়াও কারখানায় বাজেট স্বল্পতা রয়েছে। চলতি বছরে মাত্র ২০ কোটি টাকা বাজেট মিলেছে। বাজেটের টাকায় মেরামত কাজে ব্যবহৃত উৎপাদন ও উপকরণ সংগ্রহ করা হয়ে থাকে। তবে কর্মকর্তা-কর্মচারিদের বেতন দেয়া হয় রাজস্ব খাত থেকে। বিদ্যমান পরিস্থিতিতে উৎপাদন স্বাভাবিক রাখতে শূন্যপদে লোক নিয়োগ জরুরি। সেইসাথে বাজেট দ্বিগুন করা না হলে উৎপাদন ব্যহত হতে পারে। 

কারখানা সূত্রে জানা যায়, উপরের চাহিদা অনুযায়ী অবিশ্রান্ত কাজ করছেন কারখানার শ্রমিক-কর্মচারিরা। রেলপথে চলাচলের পর অনুপোযোগী হয়ে পড়া কোচগুলো সৈয়দপুর কারখানায় এনে প্রয়োজনে মেরামত সেরে পূনরায় পাঠিয়ে দেয়া হয় রেলপথে।

সরজমিনে দেখা যায়, ব্যাপক কর্মযজ্ঞ চলছে সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানায়। ক্যারেজ শপে চলছিল ভারি মেরামত কাজ। একটি ক্যারেজের বগির ওপর (আন্ডারফ্রেম) ক্রেনের মাধ্যমে স্থাপন করা হচ্ছে সুপার স্ট্রাকচার। পাশেই বগি শপে চলছিল চ্যাচিজ মেরামতের কাজ। এছাড়া ক্যারেজ শপে চলছে রেলকোচে রংয়ের প্রলেপ। ১২ হাজার রকম যন্ত্রাংশ তৈরি হয় মেশিনসহ কয়েকটি শপে। যা রেলকোচ, ওয়াগণ ও ইঞ্জিনে ব্যবহার করা হয়। একটি শপে ট্রেনের ব্রেক তৈরি হচ্ছিল। একটিতে তৈরি হচ্ছিল একটি কোচের সাথে অপর কোচকে জুড়ে দেওয়ার কাপলিং যন্ত্র। এছাড়া ঢাকায় পুড়ে যাওয়া ৩টি কোচও আনা হয়েছে কারখানায়। যেগুলো মেরামত করছিলেন শ্রমিকরা।

এ নিয়ে কথা হয় সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানার বিভাগীয় তত্বাবধায়ক (ডিএস) সাদিকুর রহমানের সাথে। তিনি বলেন, এখন কাজে তৎপরতা অনেক বেশি। দেশের রেলপথ বাড়ছে। তাই আমাদের ওপর চাপও বেড়েছে। কারখানাটিতে লোকবল সংকট নিরসনের ওপর গুরুত্ব দেন তিনি। তবে সীমাবদ্ধতার মাঝেও কারখানার গতি নজীরবিহীনভাবে ধরে রাখায় তিনি শ্রমিকসহ সংশ্লিষ্টদের ধন্যবাদ জানান।

পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের প্রধান যন্ত্র প্রকৌশলী মুহাম্মদ কুদরত ই খুদা জানিয়েছেন, এখন ম্যানেজমেন্ট লেভেল অনেক ভালো। মূলত ব্যবস্থাপনার কারণেই সৈয়দপুর কারখানায় উৎপাদন বাড়ানো সম্ভব হয়েছে। অবিলম্বে রেলওয়ের সব রকম সীমাবদ্ধতা দুর করতে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ সজাগ আছে বলে জানান তিনি। 


আরও খবর



এসএসসি ও সমমান পরীক্ষা শুরু

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৪০জন দেখেছেন

Image

চলতি বছরের এসএসসি ও সমমান পরীক্ষা শুরু হয়েছে।  আজ (বৃহস্পতিবার) সকাল ১০টা থেকে এ পরীক্ষা শুরু হয়ে চলবে দুপুর ১টা পর্যন্ত।  একযোগে ৩ হাজার ৭০০ কেন্দ্রে পরীক্ষা শুরু হয়েছে। 

আজ বাংলা প্রথম পত্র, দাখিলে কুরআন মাজিদ ও তাজবিদ পরীক্ষা চলছে। লিখিত পরীক্ষা শেষ হবে ১২ মার্চ। আর ব্যবহারিক পরীক্ষা ১৩-২০ মার্চের মধ্যে অনুষ্ঠিত হবে। পরীক্ষা সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে সব প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে বলে জানিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

এবার এ পরীক্ষায় সারা দেশের ২৯ হাজার ৭৩৫ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে ২০ লাখ ২৪ হাজার ১৯২ ছাত্রছাত্রী অংশ নিয়েছে। পরীক্ষার্থীদের মধ্যে ছাত্র ৯ লাখ ৯২ হাজার ৮৭৮ এবং ছাত্রী ১০ লাখ ৩১ হাজার ৩১৪ জন। এবারও সংশোধিত ও পুনর্বিন্যাসকৃত সিলেবাসে শিক্ষার্থীরা পরীক্ষা দিচ্ছে। তবে তাদের ১০০ নম্বরেই প্রশ্ন করা হয়েছে। আর পরীক্ষার সময়ও থাকছে পূর্ণ তিন ঘণ্টা। এ বছর সব বিষয়েই পরীক্ষা নেওয়া হচ্ছে।

জানা যায়, ১১ বোর্ডে ২০ লাখ ২৪ হাজার ১৯২ ছাত্রছাত্রী পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে। বোর্ডভিত্তিক হিসাবে সবচেয়ে বেশি ৪ লাখ ৪ হাজার ৬৩৭ পরীক্ষার্থী ঢাকা বোর্ডে। এ ছাড়া রাজশাহীতে ২ লাখ ২৪৫, কুমিল্লায় ১ লাখ ৮০ হাজার ৫২৭, যশোরে ১ লাখ ৫৯ হাজার ৩৭১, চট্টগ্রামে ১ লাখ ৪৫ হাজার ৫৯০, বরিশালে ৮৮ হাজার ৫৮৬, সিলেটে ১ লাখ ৯ হাজার ৪১২, দিনাজপুরে ১ লাখ ৯৯ হাজার ৪৩৬ এবং ময়মনসিংহে ১ লাখ ১৯ হাজার ৭৫ জন।

এ ছাড়া মাদ্রাসা বোর্ডের অধীনে দাখিল পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে ২ লাখ ৯০ হাজার ৯৪০ জন। তাদের মধ্যে ছাত্র ৯৪ হাজর ৮৪১ এবং ছাত্রী ৩১ হাজার ৫৩২ জন। আর কারিগরি বোর্ডে পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ১ লাখ ২৬ হাজার ৩৭৩ জন। এর মধ্যে ছাত্র ৯৪ হাজার ৮৪১ এবং ছাত্রী ৩১ হাজার ৫৩২ জন। ৯টি সাধারণ শিক্ষা বোর্ড এসএসসি, মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড দাখিল ও কারিগরি শিক্ষা বোর্ড এসএসসি ও দাখিল ভোকেশনাল পরীক্ষা আয়োজনের দায়িত্ব পালন করছে।


আরও খবর

চবি ছাত্রলীগে ফের উত্তেজনা

সোমবার ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




ঈধিকার পর এবার মিমি

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২০ ফেব্রুয়ারী ২০24 | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ২২জন দেখেছেন

Image

'তুফান’ সিনেমায় চিত্রনায়ক শাকিব খানের নায়িকা কে হচ্ছেন তা নিয়ে বেশ কিছুদিন ধরেই মিডিয়া পাড়ায় আলোচনা চলছে। একাধিক নায়িকাকে নিয়ে জল্পনা-কল্পনা চললেও এখন অবধি সিনেমাটির নির্মাতা রায়হান রাফি বা শাকিব খান, কেউই মুখ খোলেননি।

তবে এবার জোর আলোচনা চলছে সিনেমাটিতে কলকাতার মিমি চক্রবর্তীকে দেখা যাবে শাকিবের সঙ্গে রোমান্স করতে। ঘনিষ্ঠ সূত্রে জানা গেছে, ‘তুফান’ সিনেমায় শাকিবের বিপরীতে দেখা যাবে কলকাতার অভিনেত্রী মিমি চক্রবর্তীকে। আগামী মার্চে ভারতের রামুজিতে শুরু হবে সিনেমাটির শুটিং।

তুফান’ সিনেমাটি প্রযোজনা করছে আলফা আই, চরকি এবং পশ্চিমবঙ্গের প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান এসভিএফ। তবে নায়িকা ইস্যুতে এ তিন প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের কেউই এখন পর্যন্ত কোনো মন্তব্য করতে রাজি নন।

উল্লেখ্য, গত বছর ১১ ডিসেম্বর রাজধানীর একটি পাঁচতারকা হোটেলে অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এ সিনেমার নাম ঘোষণা করা হয়। এ সময় সিনেমাটির নির্মাতা রায়হান রাফী বলেন, ‘সুড়ঙ্গ সিনেমার পর আমার অনেক বড় স্বপ্ন ছিল বড় আয়োজনে সিনেমা বানানোর। সেটা এবার পূরণ হতে যাচ্ছে। দেশের বড় সুপারস্টারের সঙ্গে কাজ করছি।  তাকে নিয়ে দেশের বড় সিনেমাটিই আমি উপহার দেবো।’


আরও খবর

যে কারণে টাকা ফিরিয়ে দিলেন জয়া

বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




প্রথম আর্ট কলেজ চালু করল সৌদি আরব

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৪৬জন দেখেছেন

Image

প্রথম আর্ট কলেজ চালু করল সৌদি আরব। রাজধানী রিয়াদের কিং সৌদ বিশ্ববিদ্যালয়ে বিশেষায়িত এই আর্ট কলেজ চালু করা হয়েছে। দেশটির সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের পৃষ্ঠপোষকতায় এই কলেজের জন্ম হল।

এসময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন সংস্কৃতি বিষয়ক উপমন্ত্রী হামেদ বিন মোহাম্মদ ফয়েজ এবং কিং সৌদ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রেসিডেন্ট ড. বদরান আল-ওমর। এছাড়া অনুষ্ঠানে যোগ দেন দেশটির সংস্কৃতি ও শিল্প অনুরাগীরা।

ফয়েজ তার বক্তব্যে আর্ট সম্পর্কিত প্রতিষ্ঠানের তাৎপর্যের ওপর জোর দেন। তিনি বলেন, সৌদি আরবের ভিশন ২০৩০ বাস্তবায়নে সংস্কৃতি ও শিল্প নিয়ে সংস্কৃতি মন্ত্রী প্রিন্স বদর বিন আবদুল্লাহ বিন ফারহানের প্রতিশ্রুতির প্রতিফলন এই আর্ট ইনস্টিটিউট।

তিনি বলেন, এই ইনস্টিটিউট হবে বিজ্ঞান ও সংস্কৃতির মধ্যে সংমিশ্রণের সূচনা। এই কলেজে ডিজাইন, পারফরমিং আর্টস এবং ভিজ্যুয়াল আর্ট বিষয়ক বিভাগ থাকবে।


আরও খবর

ভেনেজুয়েলায় সোনার খনি ধসে নিহত ২৩ জন

বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




যাত্রাবাড়ী থেকে ০৮ জন পরিবহন চাঁদাবাজকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১০

প্রকাশিত:বুধবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৮৬জন দেখেছেন

Image

বুধবার র‌্যাব-১০ এর একটি আভিযানিক দল রাজধানী ঢাকার যাত্রাবাড়ী থানাধীন যাত্রাবাড়ী আড়ৎ এলাকার নিউ থ্রি-স্টার ফল  মার্কেটের সামনে একটি অভিযান পরিচালনা করে আন্তঃজেলা ট্রাক, কাভার্ড ভ্যান, লরী ও সিএনজিসহ বিভিন্ন পরিবহন হতে অবৈধভাবে চাঁদা আদায় করাকালীন ০৮ জন চাঁদাবাজকে গ্রেফতার করে।

গ্রেফতারকৃত ব্যক্তিদের নাম মোঃ ওমর ফারুক বাবু, মোঃ ফারুক মোঃ শাহিন ,মোঃ ইউসুফ খান, নাহিদ সরকার , মোঃ মিরাজ, মোঃ অনিক মোঃ হাসান,এসময় তাদের নিকট থেকে আদায়কৃত চাঁদা নগদ- ১৭,৭০০ টাকা এবং ০৩ টি কাঠের লাঠি উদ্ধার করা হয়।  

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় যে, গ্রেফতারকৃত ব্যক্তিরা বেশ কিছুদিন যাবৎ রাজধানীর যাত্রাবাড়ীসহ আশপাশের বিভিন্ন এলাকায় আন্তঃজেলা ট্রাক, কাভার্ড ভ্যান, লরী ও সিএনজিসহ বিভিন্ন পরিবহনের ড্রাইভার ও হেলপারদের সাথে অশোভন আচনের মাধ্যমে ক্ষয়ক্ষতি ও ভয়ভীতি দেখিয়ে অবৈধভাবে জোরপূর্বক চাঁদা আদায় করে আসছিল বলে জানা যায়। গ্রেফতারকৃত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট থানায় পৃথক মামলা রুজু করা হয়েছে।


আরও খবর



খুশির খুব যেতে ইচ্ছে করে তার গ্রামটিতে

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৮০জন দেখেছেন

Image

আমার বাড়িতে খুশি নামে একটি মেয়ে কাজ করে। মেয়েটির জন্ম ভোলা জেলার বোরহানউদ্দিন থানার কাচিয়া গ্রামে। খুশি যখন কিশোরী, ভারতের বাবরি মসজিদ ভাঙার খবর পেয়ে কট্টর মুসলমানেরা ভোলার হিন্দু গ্রামগুলো জ্বালিয়ে দিয়েছিল, খুশিদের কাচিয়া গ্রামও রক্ষা পায়নি। তারপরই রাতের অন্ধকারে খুশিরা চাষের জমি আর পোড়া ঘর বাড়ি পেছনে ফেলে চলে এসেছিল সীমান্ত পেরিয়ে, আশ্রয় নিয়েছিল নদীয়ায়। নদীয়াতেই শাড়ি বোনার কাজ করে সংসারের জন্য টাকা রোজগার করতে হতো খুশিকে। 

পনেরো বছর বয়সে খুশির বিয়ে হয়ে যায়। তারপর অভাব এমনভাবে গায়ে চাবুক মারে যে স্বামী সন্তান সঙ্গে নিয়ে দিল্লিতে চলে আসতে বাধ্য হয় খুশি। শহরের পাঁচ বাড়িতে কাজ পেয়েছে। অভাব ঘুচেছে। হাসি-খুশি খুশি একদিন তার কাচিয়া গ্রাম ত্যাগ করার গল্প করলো আমাকে। বললো তার খুব যেতে ইচ্ছে করে তার গ্রামে। গ্রাম নিয়ে তার গর্বের শেষ নেই। সে অনেকের কাছে গল্প করে তার সুজলা সুফলা শস্য শ্যামলা গ্রামের, তার গ্রামের মতো সুন্দর গ্রাম পৃথিবীতে নাকি আর কোথাও নেই। সে খবর পেয়েছে তার গ্রামে গ্যাস পাওয়া গেছে। 

দিল্লির পড়শিদের বড় গলা করে শোনায়,‌‘তোমাদের গ্রামে কি গ্যাস পাওয়া গেছে, আমাদের গ্রামে গ্যাস পাওয়া গেছে।’ খুশিতে উজ্জ্বল হয়ে ওঠে খুশির চোখমুখ। ইন্টারনেটে আমি যেন তাকে তার গ্রামের ছবি দেখাই, আমাকে আবদার করেছে। ছবি দেখালে ১২ বছর বয়সে গ্রাম ছেড়ে প্রাণ বাঁচাতে চলে আসা চল্লিশোর্ধ্ব খুশির চোখে খুশির জল। বাড়িতে অন্য যে মেয়েরা কাজ করে, তাদের ডেকে ডেকে দেখালো তার গ্রামের ছবি। বললো তার খুব যেতে ইচ্ছে করে তার গ্রামটিতে। একদিন সে যাবেই। গিয়ে কখনও আর ফিরে আসবে না। ও দেশেই, তার বাপ ঠাকুরদার ভিটেতেই রয়ে যাবে। এই দেশে কিচ্ছু নেই, সব  আছে ওই দেশে, তার দেশে। খুশি ভুলে গেছে ওদের কথা যারা তার গ্রামে আগুন ধরিয়েছিল। সে ভাবতে থাকে সে গ্রামের রাস্তায় মাথা উঁচু করে হাঁটছে, আর তার শৈশব কৈশোরের খেলার সাথীরা দৌড়ে এসে তাকে জড়িয়ে ধরছে। সবাই টানাটানি করে তাকে তাদের বাড়িতে নিচ্ছে, সুস্বাদ্য সব মাছ মাংস রান্না করে খাওয়াচ্ছে। খুশির এই স্বপ্নটিকে আমি ভেঙে দিই না। ওর হয়তো আর তেমন কিছু নেই এই স্বপ্ন ছাড়া।


আরও খবর

ওদের অসহায় দেখে গলাটা বুজে আসে

রবিবার ১৯ নভেম্বর ২০২৩