Logo
আজঃ সোমবার ১৫ এপ্রিল ২০২৪
শিরোনাম

জমজমাট ফুলের বাজার : শত কোটি টাকা বিক্রির লক্ষ্য

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১৫ এপ্রিল ২০২৪ | ১৬৫জন দেখেছেন

Image

পহেলা ফাল্গুন, বিশ্ব ভালোবাসা ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসসহ আগামী দিনের অন্যান্য দিবসগুলোর বাজার ধরতে প্রস্তুত যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার গদখালির ফুল চাষিরা। বিশেষ করে বসন্ত উৎসব ও বিশ্ব ভালোবাসা দিবসের বাকি মাত্র এক দিন। এ ছাড়া আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের বাকি আছে মাত্র আর কয়েকটা দিন। তাই ফুল নিয়ে ব্যস্ত সময় কাটছে চাষিদের।

যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার পুরো গদখালি পানিসারা অঞ্চল সেজেছে ফুলের সাজে। চাষিদের অক্লান্ত পরিশ্রম ও নিষ্ঠায় মাঠে মাঠে শোভা পাচ্ছে বিভিন্ন জাতের ফুল। সামনে আসন্ন বসন্ত উৎসব, ভালোবাসা দিবস ও মাতৃভাষা দিবসসহ অন্যান্য দিবসের বাজার ধরতেই এই প্রস্তুতি চাষিদের। ফুলের রাজধানী যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার গদখালী, পানিসারা ও এর আশপাশের এলাকায় বাণিজ্যিকভাবে চাষ হয় গোলাপ, জারবেরা, গ্লাডিওলাস, রজনীগন্ধা, গাঁদা, রড স্টিক, লিলিয়াম, জিপসি, চন্দ্রমল্লিকাসহ ১১ ধরনের ফুল।

চলতি মৌসুমে বিরূপ আবহাওয়ার কারণে ফুলের উৎপাদন কিছুটা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তবে বসন্ত উৎসব, বিশ্ব ভালোবাসা ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষাসহ অন্যান্য দিবসগুলোর বাজার সামনে রেখে তা পুষিয়ে নেয়ার আশা করছেন চাষিরা। উৎসব পর্যন্ত ফুল ধরে রাখতে, পোকার আক্রমণ ও পচন রোধে নিচ্ছেন পরিচর্যা। চাষিদের দাবি, চাহিদা থাকায় উৎসব এগিয়ে আসার সঙ্গে সঙ্গে ফুলের দাম বাড়বে এবং তারা লাভবান হবেন।

ঝিকরগাছা উপজেলার গদখালী ইউনিয়নের সৈয়দপাড়ার ফুল চাষি পারভেজ বলেন, ‘আমি ৫ বিঘা গাঁদা ও ২ বিঘায় রজনিগন্ধা চাষ করেছি। ভালোবাসা দিবসে রজনীগন্ধা ও ২১ ফেব্রুয়ারি মাতৃভাষা দিবসে গাদা ফুল বিক্রি করব। এজন্য এখন ফুলের পরিচর্যা করছি। বিশেষ করে ফুল ধরে রাখতে এবং পোকামাকড়ের হাত থেকে রক্ষা করতে ভিটামিন ও কীটনাশক ব্যবহার করছি। আশা করছি ভালো দামে ফুল বিক্রি করতে পারব।’

পানিসারা গ্রামের ফুল চাষি কুরবান আলী বলেন, ‘আমার ২ বিঘা ৪ কাটায় গোলাপ বাগান রয়েছে। আমার বাগানের গোলাপগুলো লংস্টিক এবং লাল, সাদা, হলুদ, কমলা ও গোলাপি রঙের। এ ধরনের ফুলের ভালোবাসা দিবসে বেশ চাহিদা থাকে।’ তিনি জানান, এ বছর আবহাওয়া অনুকূলে না থাকায় উৎপাদন কিছুটা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। গাছে এখন নতুন কুঁড়ি রয়েছে। এগুলো যাতে নষ্ট না হয় সেজন্য ভিটামিন স্প্রে করা হচ্ছে। ভালোবাসা দিবসের আগেই ফুলের দাম বাড়বে।

কুরবান বলেন, ‘আশা করছি, এক একটি গোলাপের পাইকারি দাম ২৫ থেকে ৩০ টাকা করে পাব।’ পানিসারা গ্রামের আব্দুর রহমান বলেন, ‘আমরা যারা ফুলের চাষ করি, তারা উৎসবকে ঘিরেই চাষ করি। এর মধ্যে সবচেয়ে বড় উৎসব বসন্ত, ভালোবাসা দিবস ও ২১ ফেব্রুয়ারি। এ কারণে আমরা পর্যাপ্ত ফুল মজুত করেছি। এখন প্রতিটি জারবেরা পাইকারি ৮/১০ টাকা দরে, গোলাপ ১৫/১৬ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। কিন্তু সামনে এসব ফুলের দাম তিনগুন হয়ে যাবে। কারণ এ বছর ভাইরাসের কারণে ফুল নষ্ট হয়েছে। এজন্য চাহিদার তুলনায় ফুলের যোগান কিছুটা কম।’

একই এলাকার ফুল চাষি ইসমাইল হোসেন বলেন, আসন্ন তিনটি দিবস সামনে রেখে বাকি অন্যান্য যে কয়টি দিবস আছে সেটাকে ঘিরে আমাদের প্রস্তুতি বেশ ভালো। গোলাপগুলো ক্যাপ পরিয়ে রাখা হয়েছে। এছাড়া নানা ধরনের ওষুধ স্প্রে করা হচ্ছে যাতে ফুল নষ্ট না হয়। এ বছর ফুলের ভালো দাম পাব, এমনটাই আশা করছি।

তিনি জানান, বর্তমানে গোলাপ প্রতি পিস ১৫-১৬ টাকা, জারবেরা প্রতি পিস ১০-১২ টাকা, গ্লাডিওলাস প্রতি পিস ১৫-১৭ টাকা, রজনীগন্ধা প্রতি পিস ১২টাকা, গাঁদা (প্রতি হাজার) ২০০-২৫০ টাকা, জিপসি প্রতি পিস ১০ টাকা, চন্দ্রমল্লিকা (১০০ পিস) ৫০০ টাকা, চায়না গোলাপ (প্রতি পিস) ২৫-২৬ টাকা, ভুট্টা (প্রতি পিস) ১২ টাকা দরে বর্তমানে বিক্রি হচ্ছে।

এদিকে ফুল চাষিদের নেতা যশোর ফুল উৎপাদন ও বিপণন সমবায় সমিতির সভাপতি মো. আব্দুর রহিম বলেন, ‘আমরা সারা বছর ফুল বিক্রি করলেও আমাদের মূল ব্যবসা হয় বেশকিছু উৎসব ঘিরে। ফুল সারা বছরই বিকিনিকি হয়। তবে উৎসবকে ঘিরে ফুলের চাহিদা বেশি থাকে এবং কৃষকরা সেই অনুযায়ী ফুল উৎপাদন ও পরিচর্যায় ব্যস্ত দিন পার করে থাকে। এ বছর বৈরি আবহাওয়ার কারণে আমাদের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ হবে না।’

তবে গত বছরের ১৬ ডিসেম্বর থেকে সামনের দিবসগুলোতে পানিসারা ও গদখালী অঞ্চল থেকে অন্তত শত কোটি টাকার ফুল বিক্রি হবে বলে আশাবাদী তিনি। আসন্ন সামনের তিনটি দিবসে প্রায় ৭০ কোটি টাকার ফুল বিক্রি হবে বলে তিনি মনে করেন। এছাড়াও বছরে প্রায় সাড়ে ৫০০ কোটি টাকার ফুল এ অঞ্চল থেকে বিক্রি হয় বলে তিনি জানান।

ঝিকরগাছা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মাসুদ হোসেন পলাশ জানান, এ বছর উপজেলার ৬৩০ হেক্টর জামিতে ফুলের চাষ হয়েছে। এর মধ্যে গোলাপের চাষ হয়েছে বেশি। ১৫০ থেকে ২০০ হেক্টর জমিতে নানা রঙের গোলাপের চাষ হয়েছে। এ ব্যবসার সঙ্গে প্রত্যক্ষ-পরোক্ষভাবে লক্ষাধিক লোক জড়িত। কৃষি বিভাগের তথ্য মতে, যশোরে প্রায় ৬০০ হেক্টর জমিতে ফুলের চাষ হয়।

সারা বছর কমবেশি ফুল বিক্রি হলেও সাধারণত ১৬ ডিসেম্বর থেকে শুরু করে ১ বৈশাখ ও ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত ফুল বিক্রি হয় সবচেয়ে বেশি। এ ছাড়াও রয়েছে ইংরেজি নববর্ষ, মহান শহীদ দিবস, বসন্ত ও বিশ্ব ভালোবাসা, মহান স্বাধীনতা দিবস ও বঙ্গবন্ধু শতবার্ষিকী। এই দিবসগুলোতে শ্রদ্ধাঞ্জলি ও শুভেচ্ছা জানাতে অন্যতম অনুষঙ্গ তাজা ফুল। তাই শীত থেকে শুরু করে গ্রীষ্ম আসার আগ পর্যন্ত সময়টা ফুলের মৌসুম হিসেবে পরিচিত।

দেশের প্রথম বাণিজ্যিক ফুলের চাষের স্থান হিসেবে সুখ্যাতি যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার গদখালী ও পানিসারা ইউনিয়নের। ১৯৮২ সালে শের আলী নামে একজন ফুল চাষি সর্বপ্রথম এ অঞ্চলে ফুলের চাষ শুরু করেন ।


আরও খবর



রমজান পালনের আদর্শ

প্রকাশিত:সোমবার ১৮ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১৫ এপ্রিল ২০২৪ | ৭০জন দেখেছেন

Image

রমজানের বিশেষ ফজিলত সম্পর্কে মুসলমানগণ অবহিত আছে। অবহিত আছে এই মাসের বিশেষ করণীয় সম্পর্কে। রসুলুল্লাহ (সা.) এই মাসটি অধিক গুরুত্বের সঙ্গে পালন করতেন। এই মাসে ইবাদত-বন্দেগিতে তিনি সময় বেশি দিতেন। কোরআন তিলাওয়াত ও দান-সদকা সবই অধিক পরিমাণে পালন করতেন। 

ইবনে আব্বাস (রা.) বর্ণনা করেন, ‘রসুলুল্লাহ (সা.) ভালো কাজে সব মানুষ অপেক্ষা শ্রেষ্ঠ ছিলেন। রমজানে তিনি আরও অধিক পরিমাণে উদারতা অবলম্বন করতেন।’ (সহিহ বোখারি, হা. ১৯০২)।

রমজান মাসে আল্লাহর পক্ষ থেকে রহমত, মাগফিরাত ও ক্ষমার অভাবনীয় অফার রয়েছে। মহানবী (সা.) এই অফার গ্রহণের জন্য সর্বপ্রকার শক্তি-সামর্থ্য ব্যয় করতেন। যুগে যুগে আল্লাহর প্রিয় বান্দাগণ তাঁর এই আদর্শ অনুসরণ করেছেন। রমজানের বরকত লাভের আশায় তারা সার্বাত্মক সাধনা করেছেন। 

তাদের জীবনীর দিকে তাকালে আমরা রমজান পালনের নিয়ম পদ্ধতি খুঁজে পাই। পাই রমজানের কল্যাণ লাভে ত্যাগ সাধনার সফল উদাহরণ এবং উত্তম আদর্শ। অন্তরে জাগ্রত হয় অফুরন্ত আগ্রহ-অনুপ্রেরণা। রমজানে তারা ইবাদত-বন্দেগির প্রতিযোগিতায় উপনীত হতেন। এই মাসে তাদের আমলে বসন্ত বিরাজ করত। 

কুতুবে আলম রশীদ আহমদ গাঙ্গুহী (রহ.)-এর জিকির, তিলাওয়াত ও ত্যাগ-সাধনা দেখে লোকজন বিস্মিত হতো। রমজানের প্রতিটি মুহূর্ত তিনি অত্যন্ত যত্নের সঙ্গে অতিবাহিত করতেন। এই মাসে তিনি প্রতিদিন মাগরিবের পর ২০ রাকাত নফল নামাজ আদায় করতেন। এই ২০ রাকাত নামাজে তিনি দুই পারার অধিক তিলাওয়াত করতেন। রুকু, সেজদা হতো অনেক দীর্ঘ। এশার পর তিনি ২০ রাকাত তারাবি আদায় করতেন দীর্ঘ সময়ে এবং অনেক যত্ন সহকারে। প্রথম ১০ রাকাত তিনি নিজেই পড়াতেন। শেষ ১০ রাকাত পড়াতেন সাহেবজাদা হাফেজ মাসউদ আহমদ। 

অতঃপর অল্প সময় বিশ্রাম নিয়ে রাত ১টা বা ২টার সময় তাহজ্জুদের জন্য তিনি জাগ্রত হতেন। সাহরি পর্যন্ত তিনি নামাজ ও জিকিরে অতিবাহিত করতেন। ফজরের পরও তিনি ঘুমাতেন না। বরং ইশরাক আদায় করে মাত্র দুই ঘণ্টা তিনি বিশ্রাম নিতেন। চাশত নামাজ পড়ে কিছুক্ষণ বিশ্রাম নিতেন। জোহর নামাজ আদায় করে আসর পর্যন্ত কোরআনুল কারিম তিলাওয়াত করতেন। 

হাজী এমদাদুল্লাহ মুহাজিরে মক্কি (রহ.) সম্পর্কে থানবী (রহ.) বর্ণনা করেন, তিনি যুবক বয়স থেকেই রমজান মাসে রাতে বিছানায় পিঠ লাগাননি। পরিবারের সদস্যদের নিয়ে নামাজ, জিকির ও তিলাওয়াত করা এবং শোনার মাধ্যমে রাত কাটাতেন। শাইখুল হাদিস আল্লামা যাকারিয়া (রহ.) জীবনের শেষ দুই বছর ব্যতীত গোটা জীবন নিজেই তারাবির ইমামতি করেছেন। 

নিয়মিত তিনি মেহমান নিয়ে ইফতার করতেন। তারাবি নামাজে যে পারা পড়া হতো সেই পারাটি তিনি নিয়মিত ওই দিন মাগরিবের নামাজের পর আউয়াবিন নামাজে তিলাওয়াত করতেন। তারাবির পর কিছুক্ষণ তিনি বিশ্রাম নিয়ে গোটা রাত নামাজ, দোয়া, জিকির ও তিলাওয়াতে মগ্ন থাকতেন। হজরত থানবী (রহ.) সারা বছরই অর্ধরাতের পর তাহাজ্জুদের জন্য জেগে যেতেন। 

মহান প্রভু রসুলুল্লাহ (সা.)-কে নির্দেশ করে বলেন, ‘হে বস্ত্রাবৃত! রাত্রিতে দন্ডায়মান হোন, কিছু অংশ ব্যতীত, অর্ধরাত্রী অথবা তৎপেক্ষা কিছু কম।


আরও খবর

অন্তরের মরিচা দূর করতে করণীয়

রবিবার ৩১ মার্চ ২০২৪




জাতীয় ঈদগাহে ঈদুল ফিতরের প্রধান জামাত সকাল সাড়ে ৮ টায়

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৬ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১৫ এপ্রিল ২০২৪ | ৬৫জন দেখেছেন

Image

রাজধানীর সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে জাতীয় ঈদগাহে ঈদুল ফিতরের প্রধান জামাত সকাল সাড়ে ৮টায় অনুষ্ঠিত হবে। সোমবার ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. আবু বকর সিদ্দীক এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, জাতীয় ঈদগাহে ঈদুল ফিতরের প্রধান জামাত সকাল সাড়ে ৮টায় অনুষ্ঠিত হবে। তবে আবহাওয়া প্রতিকূল থাকলে ঈদের প্রধান জামাত সকাল ৯টায় জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে হবে। ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন ঈদের প্রধান জামাত আয়োজনের দায়িত্বে রয়েছে। তারা এ বিষয়ে প্রস্তুতি নিচ্ছে বলে জানা গেছে। 

উল্লেখ্য, চাঁদ দেখা সাপেক্ষে আগামী ১০ বা ১১ এপ্রিল মুসলমানদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব ঈদুল ফিতর উদযাপিত হবে।


আরও খবর

অন্তরের মরিচা দূর করতে করণীয়

রবিবার ৩১ মার্চ ২০২৪




আর্জেন্টিনা শিবিরে দিবালাকে হারানোর ধাক্কা

প্রকাশিত:রবিবার ১৭ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ১৪ এপ্রিল ২০২৪ | ৭৫জন দেখেছেন

Image

আসন্ন দুইটি প্রীতি ম্যাচে লিওনেল মেসির খেলা নিয়ে শঙ্কার মাঝে বড় ধাক্কা খেল আর্জেন্টিনা। চোটের কারণে এল সালভাদর ও কোস্টা রিকার বিপক্ষে ম্যাচের দল থেকে ছিটকে গেলেন ফরোয়ার্ড পাওলো দিবালা।

ক্লাব রোমার হয়ে গত শুক্রবার অনুশীলনের সময় ডান পায়ের পেশিতে ওই চোট পান দিবালা। কয়েক সপ্তাহ মাঠের বাইরে থাকতে হবে তাকে। আসছে দুই ম্যাচে ৩০ বছর বয়সী এই ফুটবলারকে না পাওয়ার কথা সামাজিক মাধ্যমে জানিয়েছে আর্জেন্টাইন ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন।

চোট ও ফিটনেস সমস্যায় আর্জেন্টিনার সবশেষ আট ম্যাচেও খেলতে পারেননি দিবালা। চোটে পড়ার আগে রোমার হয়ে অবশ্য বেশ ভালো ছন্দে ছিলেন তিনি। চলতি মৌসুমে ইতালিয়ান দলটির হয়ে সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে ২৮ ম্যাচে ১৪ গোল করার পাশাপাশি ৭টি অ্যাসিস্ট করেছেন এই তারকা।

বিশেষ করে মেসির খেলা নিয়ে যখন অনিশ্চয়তা, দিবালার ছিটকে পড়া তখন লিওনেল স্কালোনির দলের জন্য বড় ধাক্কাই। বাংলাদেশ সময় গত বৃহস্পতিবার সকালে ক্লাব ইন্টার মায়ামির হয়ে খেলার সময় ডান পায়ে চোট পান আর্জেন্টিনা অধিনায়ক মেসি। সেরে উঠতে কতদিন লাগবে, তাও নিশ্চিত নয়।

ঘোষিত ২৬ সদস্যের দল থেকে এর আগে ছিটকে পড়েন ডিফেন্ডার মার্কোস সেনেসি। বোর্নমাউথের হয়ে খেলার সময় চোট পান তিনি। আগামী জুন-জুলাইয়ে অনুষ্ঠেয় কোপা আমেরিকার আগে সবশেষ আন্তর্জাতিক বিরতিতে আগামী ২২ মার্চ ফিলাডেলফিয়ায় এল সালভাদর এবং চার দিন পর লস অ্যাঞ্জেলসে কোস্টা রিকার বিপক্ষে খেলবে বর্তমান বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনা।


আরও খবর



খুলনায় সুন্দরবন কলেজের শিক্ষার্থীদের আন্দোলন, সড়ক অবরোধ

প্রকাশিত:বুধবার ২৭ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১৫ এপ্রিল ২০২৪ | ১১২জন দেখেছেন

Image

খুলনায় সরকারি সুন্দরবন আদর্শ কলেজের বাংলা বিভাগের শিক্ষক বাসুদেব বিশ্বাসকে বরখাস্তের দাবিতে আন্দোলনে নেমেছেন শিক্ষার্থীরা। বুধবার দুপুরে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা কলেজের প্রধান ফটক বন্ধ করে দেয়। একইসঙ্গে কলেজের সামনের সড়ক অবরোধ ও টায়ারে অগ্নিসংযোগ করে। এতে কলেজে চলমান অনার্স প্রথম বর্ষের ভর্তি কার্যক্রম বন্ধ হয়ে গেছে।

ক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা জানান, শিক্ষক বাসুদেব বিশ্বাস ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দিয়ে কটূক্তিপূর্ণ মন্তব্য করেছেন। তারা অবিলম্বে বাসুদেব বিশ্বাসের বরখাস্তের দাবি জানান।

এ বিষয়ে কলেজের অধ্যক্ষ মাসুদা সুলতানা জানান, শিক্ষক বাসুদেব বিশ্বাসের বিরুদ্ধে অভিযোগ নিয়ে বৈঠক করা হয়েছে। শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে ভর্তি কার্যক্রম আপাতত বন্ধ রয়েছে। তবে সব পক্ষের সঙ্গে কথা বলে পরিস্থিতি শান্ত করা হচ্ছে।


আরও খবর



ফিলিস্তিনকে স্বীকৃতি দিতে ‘প্রস্তুত’ স্পেনসহ ইউরোপের ৪ দেশ

প্রকাশিত:শনিবার ২৩ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১৫ এপ্রিল ২০২৪ | ৬৯জন দেখেছেন

Image

ফিলিস্তিন আলাদা রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দিতে সম্মত হয়েছে চার ইউরোপীয় দেশ স্পেন, আয়ারল্যান্ড, মাল্টা ও স্লোভেনিয়া। শুক্রবার ব্রাসেলসে ইউরোপীয় কাউন্সিলের বৈঠকের পর চার দেশের সম্মতির এ কথা জানান স্পেনের প্রধানমন্ত্রী পেদ্রো সানচেজ। 

পূর্ব জেরুজালেমকে রাজধানী করে আলাদা ফিলিস্তিনি রাষ্ট্র গঠন ফিলিস্তিনি জনগণের বহুদিনের স্বপ্ন। সাম্প্রতিক সময়ে বিষয়টি ব্যাপক আলোচনা পেয়েছে। স্পেনের প্রধানমন্ত্রী বলেন, কাউন্সিলের সমাবেশের ফাঁকে আইরিশ, মাল্টিজ এবং স্লোভেনিয়ান নেতাদের সঙ্গে বৈঠকের পর এই চুক্তি হয়েছে। তিন দেশের সঙ্গে মিলে ফিলিস্তিনকে রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়ার প্রথম পদক্ষেপ নিয়েছে স্পেন।

বৈঠকের পর এক যৌথ বিবৃতিতে আয়ারল্যান্ড বলেছে, দীর্ঘস্থায়ী শান্তি ও স্থিতিশীলতা অর্জনের একমাত্র উপায় হলো একটি দ্বি-রাষ্ট্রীয় সমাধান বাস্তবায়ন করা। তবেই শান্তি ও নিরাপত্তায় বসবাস করতে পারবে ইসরায়েলি ও ফিলিস্তিনিরা। ১৯৮৮ সাল থেকে জাতিসংঘের ১৯৩টি সদস্য রাষ্ট্রের মধ্যে ১৩৯টি ফিলিস্তিনি রাষ্ট্রকে স্বীকৃতি দিয়েছে।


আরও খবর