Logo
আজঃ শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

ফের অস্থির পেঁয়াজের বাজার

প্রকাশিত:শনিবার ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৪৯জন দেখেছেন

Image

কিছুতেই স্বস্তি ফিরছে না দেশের নিত্যপণ্যের বাজারে। যথারীতি এ সপ্তাহেও বাজারে বাড়তির দিকেই রয়েছে বেশিরভাগ পণ্য। নতুন করে অস্থিরতা বাড়ছে পেঁয়াজের বাজারে। এছাড়াও আগের চড়া দামে অপরিবর্তিত রয়েছে মাছ- মাংস, ডিমসহ অতিপ্রয়োজনীয় পণ্যগুলো।

এদিকে রমজানে দাম সহনীয় রাখতে ৪ পণ্যের আমদানি শুল্ক হ্রাসসহ বাজার ব্যবস্থা মনিটরিং আরও জোরালো করার ঘোষণা দিয়েছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। শিগগিরই এসব পণ্যের দাম নির্ধারণ করা হবে। যদিও এর আগে চিনি ও চালে শুল্কছাড় দেওয়া হলেও বাজারে তার কোনো প্রভাব দেখা যায়নি। অন্যদিকে ভোজ্যতেল ব্যতীত গত এক বছরে কোনো পণ্যেরই নির্ধারিত দাম কার্যকর করা যায়নি। তবে ভোজ্যতেল আমদানিকারকরা বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশ না মেনে এখন নিজেরাই দাম নির্ধার করে দিচ্ছে। ফলে চাল, চিনি ও তেলসহ অন্যান্য খাদ্যপণ্যের দাম নিয়ন্ত্রণ নিয়ে সংশয় জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।

এদিকে নতুন করে অস্থিরতা বেড়েছে পেঁয়াজের বাজারে। সপ্তাহের ব্যবধানে প্রায় ৩০ টাকা বেড়ে এদিন প্রতি কেজি বিক্রি হয়েছে ১২০ টাকার উপরে। বিক্রেতারা জানিয়েছেন হালি পেঁয়াজ বাজারে না আসা পর্যন্ত দাম বাড়তির দিকেই থাকবে। তাদের হিসেবে মার্চের আগে বাজারে হালি পেঁয়াজের সরবরাহ পাওয়ার সম্ভাবনা নেই। ফলে ফেব্রুয়ারিজুড়েই বাড়তির দিকে থাকতে পারে এই মসলা পণ্যের দাম। যদিও গত ৫ মাস ধরে সংকট চলছে পেঁয়াজের বাজারে। বাজার বিশ্লেষণ করে ৬৫ টাকা দাম নির্ধারণ করা হলেও বাজারে ভোক্তাকে কিনতে হয়েছে ৫ গুণ বেশি দামে। এমনি মুড়িকাটা পেঁয়াজও এবার ৩ গুণ বেশি দামে বিক্রি হয়েছে।

ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন, গত দুই সপ্তাহ ধরেই পেঁয়াজের পাইকারি বাজারে সরবরাহ সংকট চলছে ফলে খুচরায় দাম বাড়ছে। শ্যামবাজারের পেঁয়াজ ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মাজেদ জানান, ডলারের বাড়তি দামের কারণে অন্য দেশ থেকে আমদানি করলে প্রতি কেজিতে পেঁয়াজের দাম পড়ে যায় ৭০ থেকে ৭৫ টাকা। এর সঙ্গে অন্যান্য খরচ ও মুনাফা হিসাব করলে ১০০ টাকার কাছাকাছি খরচ পড়ে যায়। মার্চে যেহেতু নতুন হালি পেঁয়াজ আসবে তাই আমদানিকারকদের বড় লোকসানের ভয়ে আমদানি কমেছে। তবে ভারত থেকে আমদানির সুযোগ পেলে ব্যবসায়ীরা পেঁয়াজ আনতে আগ্রহী হবে। কিন্তু মার্চ পর্যন্ত আমদানি বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

এছাড়াও বাড়তিই রয়েছে ডিমের দাম। এদিনও প্রতি ডজন ডিম বিক্রি হয়েছে দেড়শ’ টাকা দরে। অন্যদিকে এ সপ্তাহে সবজির বাজারে দাম কিছু টাকা কমলেও গত বছরের তুলনায় এখনও দ্বিগুণ। সপ্তাহের ব্যবধানে ফুলকপিসহ কিছু সবজির দাম কমলেও বেশিরভাগ সবজি বিক্রি হয়েছে ৮০ টাকা দরে। কিছুটা কমে বেগুন ৮০, দেশি শিম ৬০, টমেটো জাতভেদে ৬০-৮০, শসা ৬০, করোল্লা ৯০, মিষ্টি কুমড়া ৬০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হতে দেখা গেছে।

তবে গত সপ্তাহ থেকে বাজারে আলুর দাম কিছুটা কমতে শুরু করেছে। এদিন প্রতি কেজি আলু বিক্রি হয়েছে ৩০ টাকা দরে। অর্থাৎ দুই সপ্তাহের ব্যবধানে দাম কমেছে প্রায় ৩০ টাকা। এদিকে বাজারে এখনও প্রতি কেজি প্যাকেটজাত চিনি বিক্রি হচ্ছে ১৫০-১৬০ টাকা দরে। একইভাবে গত সপ্তাহের চড়া দামে অপরিবর্তিত রয়েছে মসুর ডাল। প্রতি কেজি ছোট দানার মসুর ডাল বিক্রি হয়েছে ১৪০ থেকে ১৫০ টাকায়, ভালোমানের মুগ ডালের কেজি বিক্রি হয়েছে ১৬০ থেকে ১৭০ টাকা দরে।

এছাড়াও গত সপ্তাহের দামে অপরিবর্তিত রয়েছে মাছের বাজারে। এদিন মাঝারি আকারের রুইয়ের কেজি বিক্রি হয়েছে ৩৫০ থেকে ৪০০ টাকা, বড় কাতল ৪শ’ টাকা, বড় পাঙাশ ২৫০ টাকা, চাষের কই (ছোট) ৩৩০ টাকা, তেলাপিয়া আড়াইশ’ টাকা ও শিং মাছ ৬শ’ টাকা, শোল মাছ ৮শ’ টাকা, পাবদা ৫শ’ থেকে ৬শ’ টাকা, টেংরা মাছের কেজি আকারভেদে ৬শ’ থেকে ৭শ’ টাকা, মলা মাছ ৫শ’ টাকা, বাইলা ১ হাজার টাকা, পোয়া মাছ ৩৫০ থেকে ৪শ’ টাকা, মাঝারি আকারে বোয়াল ৫শ’ থেকে ৬শ’ টাকা, গুঁড়ামাছ ৩শ’ টাকা, ছোট চিংড়ি ৫শ’ টাকা, গলদা ৭শ’ এবং বাগদা ৮শ’ থেকে ৯শ’ টাকা ও রূপচাঁদা ৯শ’ টাকা দরে।


আরও খবর



জনবল সংকট সত্বেও সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানায় ট্রেনের উৎপাদন কার্যক্রম বৃদ্ধি

প্রকাশিত:রবিবার ১১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৪৬জন দেখেছেন

Image

সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি: ব্যাপক জনবল সংকট ও বাজেটের সীমাবদ্ধতা সত্বেও দেশের বৃহত্তম সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানায় উৎপাদন কার্যক্রম বৃদ্ধি পেয়েছে। দিনে ৩ ইউনিট মেরামত লক্ষ্যমাত্রা থাকলেও কোচ মেরামতের ক্ষেত্রে লক্ষ্যমাত্রা (টার্গেট) ৪ ইউনিট ছাড়িয়ে গেছে।

নতুন নতুন রেলরুট চালু ও পদ্মা সেতুতে রেল সংযোগ চালু হওয়ায় যেমন কোচের চাহিদা বেড়েছে তেমনি নতুন ট্রেন চালু করতেও অনেক কোচের প্রয়োজন দেখা দিয়েছে। এ কারণে পুরাতন ট্রেন মেরামত ও নতুন ট্রেন সংযোজনের চাপ সৃষ্টি হয়েছে। ফলে জোগান দিতে কারখানায় এই কর্মতৎপরতা বৃদ্ধি পেয়েছে। 

রেলের সূত্র জানায়, বর্তমান সরকার রেলবান্ধব। ফলে সারাদেশে রেলপথ বাড়ানো হচ্ছে। পদ্মা সেতুতে রেল সংযোগ চালুর পর পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়েতে বেশ কিছু নতুন ট্রেন চালু হয়েছে। দিতে হচ্ছে কোচের জোগান। ফলে সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানার উপর চাপ বেড়েছে।

সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানার ক্যারেজ শপের (উপ-কারখানা) ইনচার্জ ও উপ-সহকারী প্রকৌশলী মোমিনুল ইসলাম বলেন, এখানে প্রতিদিন ৩ ইউনিট কোচ মেরামতের লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে। প্রতিদিন দুই ইউনিটে একটি পূর্ণাঙ্গ কোচ বুঝানো হয়। সেক্ষেত্রে আমরা চলতি অর্থ বছরে জুলাই থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত ৬ মাসে ৩১৭টি কোচ মেরামত করেছি। অর্থাৎ প্রতিদিন ৪ ইউনিট মেরামত কাজ হয়েছে।

কারখানা সূত্র জানায়, সৈয়দপুর কারখানায় চরম লোকোবল সংকট রয়েছে। এখানে দুই হাজার ৮৫৯ জনের স্থলে লোকোবল রয়েছে মাত্র ৮২০ জন। কারখানার ২৮টি উপ-কারখানায় (শপ) উৎপাদন চলছে সীমিত সংখ্যক লোক নিয়ে। মাত্র ২৮ শতাংশ লোক কর্মরত আছেন ১১০ একর জমির উপর গড়ে ওঠা বিশাল ওই কারখানাটিতে। 

এছাড়াও কারখানায় বাজেট স্বল্পতা রয়েছে। চলতি বছরে মাত্র ২০ কোটি টাকা বাজেট মিলেছে। বাজেটের টাকায় মেরামত কাজে ব্যবহৃত উৎপাদন ও উপকরণ সংগ্রহ করা হয়ে থাকে। তবে কর্মকর্তা-কর্মচারিদের বেতন দেয়া হয় রাজস্ব খাত থেকে। বিদ্যমান পরিস্থিতিতে উৎপাদন স্বাভাবিক রাখতে শূন্যপদে লোক নিয়োগ জরুরি। সেইসাথে বাজেট দ্বিগুন করা না হলে উৎপাদন ব্যহত হতে পারে। 

কারখানা সূত্রে জানা যায়, উপরের চাহিদা অনুযায়ী অবিশ্রান্ত কাজ করছেন কারখানার শ্রমিক-কর্মচারিরা। রেলপথে চলাচলের পর অনুপোযোগী হয়ে পড়া কোচগুলো সৈয়দপুর কারখানায় এনে প্রয়োজনে মেরামত সেরে পূনরায় পাঠিয়ে দেয়া হয় রেলপথে।

সরজমিনে দেখা যায়, ব্যাপক কর্মযজ্ঞ চলছে সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানায়। ক্যারেজ শপে চলছিল ভারি মেরামত কাজ। একটি ক্যারেজের বগির ওপর (আন্ডারফ্রেম) ক্রেনের মাধ্যমে স্থাপন করা হচ্ছে সুপার স্ট্রাকচার। পাশেই বগি শপে চলছিল চ্যাচিজ মেরামতের কাজ। এছাড়া ক্যারেজ শপে চলছে রেলকোচে রংয়ের প্রলেপ। ১২ হাজার রকম যন্ত্রাংশ তৈরি হয় মেশিনসহ কয়েকটি শপে। যা রেলকোচ, ওয়াগণ ও ইঞ্জিনে ব্যবহার করা হয়। একটি শপে ট্রেনের ব্রেক তৈরি হচ্ছিল। একটিতে তৈরি হচ্ছিল একটি কোচের সাথে অপর কোচকে জুড়ে দেওয়ার কাপলিং যন্ত্র। এছাড়া ঢাকায় পুড়ে যাওয়া ৩টি কোচও আনা হয়েছে কারখানায়। যেগুলো মেরামত করছিলেন শ্রমিকরা।

এ নিয়ে কথা হয় সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানার বিভাগীয় তত্বাবধায়ক (ডিএস) সাদিকুর রহমানের সাথে। তিনি বলেন, এখন কাজে তৎপরতা অনেক বেশি। দেশের রেলপথ বাড়ছে। তাই আমাদের ওপর চাপও বেড়েছে। কারখানাটিতে লোকবল সংকট নিরসনের ওপর গুরুত্ব দেন তিনি। তবে সীমাবদ্ধতার মাঝেও কারখানার গতি নজীরবিহীনভাবে ধরে রাখায় তিনি শ্রমিকসহ সংশ্লিষ্টদের ধন্যবাদ জানান।

পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের প্রধান যন্ত্র প্রকৌশলী মুহাম্মদ কুদরত ই খুদা জানিয়েছেন, এখন ম্যানেজমেন্ট লেভেল অনেক ভালো। মূলত ব্যবস্থাপনার কারণেই সৈয়দপুর কারখানায় উৎপাদন বাড়ানো সম্ভব হয়েছে। অবিলম্বে রেলওয়ের সব রকম সীমাবদ্ধতা দুর করতে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ সজাগ আছে বলে জানান তিনি। 


আরও খবর



শুল্ক কমানোর পরও দাম বেড়েছে রোজার পণ্যের

প্রকাশিত:রবিবার ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৪০জন দেখেছেন

Image

রোজার আগে বাজারে পণ্যের দাম সহনীয় রাখতে চাল, চিনি, তেলসহ কিছু পণ্যের শুল্ক-কর কমিয়েছে সরকার। কিন্তু বাজারে এর কোনো প্রভাব তো পড়েইনি, উল্টো গত এক সপ্তাহে রমজানসংশ্লিষ্ট কয়েকটি পণ্যের দাম অস্বাভাবিকভাবে বেড়ে গেছে।

ব্যবসায়ীরা বলেছেন, দাম নিয়ন্ত্রণে সরকারের পদক্ষেপ যথাযথ নয়। ডলার সংকটে সাধারণ ব্যবসায়ীরা এতদিন ভোগ্যপণ্য আমদানির ঋণপত্র খুলতে পারেনি। তখন সরকার নজর দেয়নি। ফলে রমজানের এসব ভোগ্যপণ্য আমদানির সুযোগ নিয়েছেন সীমিত কয়েকজন আমদানিকারক। রমজানের আগ মুহূর্তে আমদানিতে শুল্ক-কর কমানোর অর্থ অনেকটা বড় আমদানিকারকদের বাড়তি সুবিধা দেওয়ার মতো বলে মন্তব্য করেন ব্যবসায়ীরা।

গত ৮ ফেব্রুয়ারি চালের আমদানি শুল্ক-কর ৬৩ শতাংশ থেকে কমিয়ে ১৫ শতাংশ করা হয়। আর সম্পূরক শুল্ক কমানো হয় ২০ শতাংশ। এ ছাড়া পরিশোধিত-অপরিশোধিত সয়াবিন ও পাম তেলের ভ্যাট ১৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ১০ শতাংশ করে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। চিনি আমদানিতে প্রতি টনে আমদানি শুল্ক কমিয়ে ১ হাজার টাকা করা হয়েছে, আগে যা ছিল ১ হাজার ৫০০ টাকা। আর খেজুর আমদানিতে শুল্ক ৫৮ শতাংশ থেকে কমিয়ে ১৫ শতাংশ করা হয়েছে। কিন্তু দেশের ভোগ্যপণ্যের বৃহত্তম পাইকারি বাজার খাতুনগঞ্জে চিনি ও ভোজ্যতেলের দাম বেড়ে গেছে।

পাইকারি পর্যায়ে প্রতিকেজি চিনি বিক্রি হচ্ছে ১৩৪ টাকা দরে, যা এক সপ্তাহ আগে ১৩২ টাকায় বিক্রি হতো। এ ছাড়া গত সপ্তাহে পাইকারিতে প্রতি লিটার সয়াবিন তেল ১৬১ টাকা, পাম তেল ১৩১ টাকা ও সুপার পাম তেল ১৩৪ টাকা দরে বিক্রি হলেও এখন সয়াবিন তেল ১৫৫ টাকা, পাম তেল ১৩৪ টাকা ও সুপার পাম তেল ১৩৭ টাকা দামে বিক্রি হচ্ছে। ভোগ্যপণ্য আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান এ জামান এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী নুরুল আলম বলেন, ‘ডলার সংকটের কারণে সাধারণ ব্যবসায়ীরা আমদানির ঋণপত্র খুলতে পারেননি। ব্যাংক মালিক কিংবা কোনো না কোনোভাবে ব্যাংকের সঙ্গে সম্পৃক্ত আমদানিকারকরাই প্রভাব খাটিয়ে পণ্য আমদানির সুযোগ পেয়েছেন। রমজানসংশ্লিষ্ট পণ্যসহ দেশের পুরো ভোগ্যপণ্যের বাজার এখন সর্বোচ্চ ১০-১৫ জন বড় আমদানিকারক প্রতিষ্ঠানের হাতে সীমাবদ্ধ। ফলে রমজানের আগমুহূর্তে শুল্ক-কর কমিয়ে বাজার নিয়ন্ত্রণ হবে বলে মনে হচ্ছে না। বরং এটা আমদানিকারকদের বাকি পণ্য আমদানিতে শুল্কছাড়ের সুযোগ করা দেওয়া। যার কোনো সুফল ভোক্তারা পাবে না।’

এ ব্যাপারে কনজিউমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) সহসভাপতি এসএম নাজের হোসেন বলেন, ‘সাধারণ ব্যবসায়ীরা ভোগ্যপণ্য আমদানিতে ঋণপত্র খুলতে পারছেন না বিষয়টা গত কয়েক মাস ধরে শুনে আসছি। তা সমাধানে বাংলাদেশ ব্যাংকসহ সংশ্লিষ্টরা কার্যকর কোনো উদ্যোগ গ্রহণ করেনি।’ ‘রমজানের আগমুহূর্তে এখন পণ্যের দাম নিয়ন্ত্রণের তোড়জোড় শুরু করেছে সরকার। আমদানি থেকে শুরু করে বাজারজাত পর্যন্ত পূর্ণ প্রতিযোগিতা না থাকলে বাজার নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন।’

শনিবার রাজধানীর কল্যাণপুর ও কারওয়ান বাজার ঘুরে বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, শুল্ক কমানোর পরও খুচরা পর্যায়ে ওই ভোগ্যপণ্যের দাম কমেনি। কারওয়ান বাজারের ইয়াসিন জেনারেল স্টোরের বিক্রয়কর্মী আলী হোসেন বলেন, খোলা চিনি ১৪০ টাকা এবং প্যাকেটজাত চিনি ১৪৫ টাকা কেজি, ছোলা ১১০ টাকা কেজি, বোতলজাত সয়াবিন তেল ১৭০ টাকা লিটার বিক্রি করছেন তারা।বেড়েছে ছোলার দামও ভোগ্যপণ্যের পাইকারি বাজার চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জের ব্যবসায়ীরা জানান, গত এক সপ্তাহে অস্বাভাবিক বেড়েছে রমজানের অন্যতম ভোগ্যপণ্য ছোলার দাম।

তারা বলেন, এক সপ্তাহ আগে পাইকারিতে ভালো মানের প্রতিকেজি ছোলা (অস্ট্রেলিয়া) বিক্রি হয়েছে ৮৭ টাকা। দাম ১০ টাকা বেড়ে সপ্তাহ শেষে বৃহস্পতিবার একই ছোলা ৯৭ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। মাঝারি মানের যেসব ছোলা ৮০ টাকায় বিক্রি হতো, তার দাম এখন বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৯১ টাকায়।

একইভাবে স্বাভাবিক সময় ৪৫ টাকায় বিক্রি হওয়া সাদা মটরের দাম ঠেকেছে এখন ৬৬ টাকায়। নাম প্রকাশ না করার শর্তে খাতুনগঞ্জের একাধিক ব্যবসায়ী অভিযোগ করেন, এবারে রমজানকে ঘিরে ছোলা আমদানি হয়েছে চাহিদার মাত্র এক-তৃতীয়াংশ। এই সুযোগে আমদানিকারকদের কাছ থেকে বেশিরভাগ ছোলা খাতুনগঞ্জের এক ব্যবসায়ী (পায়েল ট্রেডার্স) কিনে নিয়েছেন। ওই ব্যবসায়ী এখন ইচ্ছেমতো দাম বাড়াচ্ছেন।

তবে বিষয়টি অস্বীকার করে পায়েল ট্রেডার্সের স্বত্বাধিকারী পরিতোষ মহাজন বলেন, ‘বাজারের বেশিরভাগ ছোলা-মটর আমরা মজুদ করেছি, বিষয়টি সত্য নয়। আমরা ১০০-২০০ টন করে পণ্য কিনে বাজারে বিক্রি করি।’ তিনি কয়েকটি বড় কর্পোরেট গ্রুপের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে বলেন, কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের কাছে বেশিরভাগ পণ্য রয়েছে।বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আহসানুল ইসলাম টিটু খাতুনগঞ্জের ব্যবসায়ীদের বাজারে একচেটিয়া প্রভাব বিস্তার নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেছেন, ‘বাজারে একচেটিয়া প্রভাব রোধে আমরা ব্যবস্থা নেব।’

শুক্রবার এক প্রেস ব্রিফিংয়ে তিনি ব্যবসায়ীদের প্রতি রমজানে জনসাধারণকে সহযোগিতা করার আহ্বান জানান। চলতি সপ্তাহে আমদানিকারক ও পণ্য উৎপাদনকারীদের সঙ্গে বৈঠক করে তেলের দাম নির্ধারণ করা হবে বলে জানান প্রতিমন্ত্রী। এ ছাড়া ভারত পেঁয়াজ ও চিনি সরবরাহ করতে রাজি হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন। ‘আমরা ভারত ও অন্যান্য প্রতিবেশী দেশ থেকে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের নিরবচ্ছিন্ন সরবরাহ নিশ্চিত করতে কাজ করব।’ তিনি আরও বলেন, পর্যাপ্ত চাল সরবরাহ রয়েছে, মজুদ রয়েছে ১৭ লাখ টনেরও বেশি। ‘আমরা অসাধু ব্যবসায়ীদের তৈরি কৃত্রিম খাদ্য সংকট বা মূল্যবৃদ্ধি সহ্য করব না,’ বলেন তিনি।


আরও খবর



আত্মবিশ্বাস ফিরে পেতে এমন আরো দুটি ইনিংস চান সাকিব

প্রকাশিত:বুধবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৭৬জন দেখেছেন

Image

হাতে চোট পেয়ে গেল বছর ভারতে অনুষ্ঠিত হওয়া ওয়ানডে বিশ্বকাপের পর থেকে মাঠের বাইরে ছিলেন বাংলাদেশ দলের তিন ফরম্যাটের অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। ২২ গজে ফিরেছেন বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল) দিয়ে। তবে আসরটিতে শুরু থেকেই ছন্নছাড়া ছিলেন সাকিব। পারছিলেন না ঠিকঠাকভাবে ব্যাটিং করতে।

টুর্নামেন্টের প্রথম ম্যাচ খেলার পর জানা যায় সাকিবের চোখের সমস্যার বিষয়টি। এই কারণে তার ব্যাট করতে সমস্যা হচ্ছিল। তাই এক ম্যাচ বিরতি নিয়ে চোখের চেকআপ করাতে চলে যান সিংগাপুরে। তবে ফিরে এসেও কাঙ্ক্ষিত ফলাফল পাচ্ছিলেন না। মাঝে দুই ম্যাচে ব্যাট হাতে নামেননি। তবে বোলিংয়ে ধারাবাহিক ছিলেন। সব কিছু মিলিয়ে চলমান বিপিএলে খুব বাজে সময়ের মধ্য দিয়েই যাচ্ছিলেন তিনি। তাই তাকে মাঠে শুনতে হয়েছে ‘ধুয়ো’ ধ্বনিও। কিন্তু খারাপ সময় কাটিয়ে ব্যাট হাতে রানে ফিরেছেন বিশ্বসেরা এই অলরাউন্ডার। আর যেদিন রানে ফিরলেন সেদিনই তার হাতে উঠল ম্যাচসেরার পুরস্কার।

সিলেট পর্ব শেষে দুই দিনের বিরতির পর গতকাল দুর্দান্ত ঢাকা আর রংপুর রাইডার্সের ম্যাচ দিয়ে দ্বিতীয় ধাপে মিরপুরে ফিরেছে বিপিএল। এদিন সকাল থেকেই মেঘলাটে আকাশ সূর্য দেখা দেয়নি। তবে এমন ধূসর মেঘে জ্বলে উঠলেন সাকিব। আর তাতেই চলমান বিপিএলে প্রথম বারের মতো সাকিবের ব্যাট থেকে চার ছক্কার মার দেখেছে। পুরো গ্যালারি মুখরিত হয়ে গিয়েছিল ‘সাকিব সাকিব’ স্লোগানে, যেখান থেকে আসরের শুরু থেকে ধুয়ো ধ্বনি ভেসে এসেছিল।

মঙ্গলবার সাকিব রংপুরের হয়ে ব্যাট হাতে নামেন তার চির পছন্দের ব্যাটিং পজিশনে। দলীয় ৬৭ রানে ওপেনার রনি তালুকদার ঢাকার স্পিনার আরাফাত সানির এলবি ফাঁদে পড়ে সাজঘরে ফিরলে তৃতীয় ব্যাটার হিসেবে নামেন টাইগার অধিনাক। এ সময় ১৭০ স্ট্রাইকরেটে তিন ছক্কা ও এক চারের মারে খেলেন ২০ বলে ৩৪ রানের ইনিংস। তার ঝড়ো ব্যাটিংয়ে রংপুরও পায় বড় সংগ্রহ। এরপর বল হাতেও ছিলেন দলের সবচেয়ে কিপটে বোলার। ৪ ওভার বল করে মাত্র ১৬ রান দিয়ে শিকার করেন ৩ উইকেট। এমন পারফরম্যান্সের পর ম্যাচসেরা পুরস্কার যে তার হাতেই উঠবে, তা অনুমেয়ই ছিল, আর হয়েছেও তাই।

পরে বিপিএলে নিজের প্রথম ম্যাচসেরার পুরস্কার নিতে এসে ব্রডকাস্টারের সঙ্গে আলাপকালে বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক বললেন, ‘শুধু ম্যাচ প্র্যাকটিস, এটাই আমার দরকার ছিল। বিপিএল কঠিন টুর্নামেন্ট, বিশেষ করে ব্যাটসম্যানদের জন্য। এখানে ইনিংসের শুরুতে ব্যাটিং করা সহজ ছিল না। হ্যাঁ, খুব ভালো লাগছে ক্রিজে কিছু সময় কাটাতে পেরে। আরো কিছু সময় ক্রিজে কাটাতে চাইব। এমন আরো দুটি ম্যাচ পেলে আমি আমার পূর্ণ আত্মবিশ্বাস ফিরে পাব।’ এ সময় এ ম্যাচে ব্যাট করতে সমস্যা হয়েছে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘না, তেমন নয়। আমি উইকেটে কিছু সময় কাটানোর চেষ্টা করেও পারছিলাম না। যেটা আমার দরকার ছিল। আশা করি, আরো কিছু ম্যাচ, আরো কিছু বল খেলতে পারলে আমি (নিজেকে) আরো আত্মবিশ্বাসী বোধ করব।’

এদিকে দলের সেরা অলরাউন্ডার সাকিবের হারানো ছন্দ খুঁজে পাওয়ায় স্বস্তি ফিরে পেয়েছে রংপুর রাইডার্সও। ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে এসে ফ্রাঞ্চাইজিটির অধিনায়ক নুরুল হাসান সোহান বলেন, ‘অবশ্যই সাকিব ভাইয়ের আজকের পারফরম্যান্সের জন্য অনেক খুশি, এটা আমাদের জন্য অনুপ্রেরণাদায়ক। উনি যেভাবে আসলে নিজেকে তৈরি করার চেষ্টা করছিলেন, ফিরে আসার জন্য যে নিবেদন ছিল...ঐ জায়গা থেকে আমিও অনেকটা নির্ভার হলাম তাকে এভাবে খেলতে দেখে।’


আরও খবর

আইপিএল শুরুর তারিখ নির্ধারণ

বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




কোরিয়াকে হারিয়ে স্বপ্নের ফাইনালে জর্ডান

প্রকাশিত:বুধবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৫৮জন দেখেছেন

Image

দুবারের চ্যাম্পিয়ন দক্ষিণ কোরিয়াকে হারিয়ে প্রথমবারের মতো এশিয়ান কাপের স্বপ্নের ফাইনালে জর্ডান। কাতারের আল রাইয়ানে প্রথম সেমিফাইনালে তারকাবহুল কোরিয়াকে ২-০ গোলে হারিয়েছে আরব দেশটি।

শক্তি, সামর্থ্য, পরিসংখ্যান; সব কিছুর বিচারে পিছিয়ে থেকে সেমিফাইনালে দক্ষিণ কোরিয়ার মুখোমুখি হয় জর্ডান। বল দখলে দক্ষিণ কোরিয়ার প্রাধান্য থাকলেও আক্রমনের সুযোগ তৈরিতে এগিয়ে ছিলো জর্ডান। তবে প্রথমার্ধ শেষ হয় গোলশূন্য স্কোরলাইনে।

দ্বিতীয়ার্ধে ডেডলক ভাঙ্গে ৫৪ মিনিটে। দারুণ ফিনিশিংয়ে জর্ডানকে লিড এনে দেন আল-নিয়ামাত। ৬৬ মিনিটে দ্বিতীয় গোল পায় জর্ডান। চমৎকার গোলে স্কোরশিটে নাম তোলেন মুসা আল-তামারি।

হারের পর জর্ডানকে অভিনন্দন জানিয়েছেন দক্ষিণ কোরিয়ার তারকা ফরোয়ার্ড সন হিয়ুন মিন। ফিফা র‍্যাঙ্কিংয়ে জর্ডানের অবস্থান ৮৭ নম্বরে এবং কোরিয়ার অবস্থান তেইশে।


আরও খবর

আইপিএল শুরুর তারিখ নির্ধারণ

বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




টঙ্গীতে ট্রেন-ট্রাকে সংঘর্ষ : অটোচালক নিহত

প্রকাশিত:সোমবার ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৩২জন দেখেছেন

Image

ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা কুড়িগ্রাম গামী আন্তঃনগর কুড়িগ্রাম এক্সপ্রেস ট্রেনের সাথে টঙ্গীতে সিটি করপোরেশনের ময়লা বহনকারী ড্রাম ট্রাকের সংঘর্ষ হয়েছে। এঘটনায় এক অটোরিকশা চালা নিহত হয়েছে।

রোববার (১১ জানুয়ারি) রাত ১১টার দিকে ঢাকা-ময়মনসিংহ রেলসড়কের মধুমিতা রেলক্রসিং এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ঘটনাস্থলে থাকা এক অটোরিকশা চালকসহ দুইজন আহত হয়েছেন। ঘটনার পর থেকে রাত পৌনে ১টা পর্যন্ত ঢাকার সঙ্গে আপলাইনে রেলচলাচল বন্ধ থাকে। পরে রেকার দিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত ট্রাকটি সরিয়ে নিলে রেল চলাচল স্বাভাবিক হয়। নিহত অটো রিকশা চালক নবীন (১৮) নেত্রকোনার পূর্বধলা থানা ধলা গ্রামের দুদু মিয়ার ছেলে।

রেলওয়ে পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, রেললাইনের পাশে সিটি করপোরেশনের একটি ময়লার ট্রাক ও বালুর ট্রাক পার্কিং করে রাখা ছিল। রাত ১১টার দিকে ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা কুড়িগ্রাম এক্সপ্রেস ট্রেনটি মধুমিতা রেলক্রসিং পার হচ্ছিল। এ সময় ট্রেনের ইঞ্জিনের সাথে দাঁড়িয়ে থাকা ময়লার ট্রাকের ধাক্কা লাগলে ময়লার ট্রাক ও পাশে থাকা বালুর ট্রাক দুমড়ে মুচড়ে যায়। পরে ময়লার ড্রাম ট্রাকের নিচে একটি অটোরিকশা চাপা পড়লে অটোরিকশা চালকসহ দুইজন গুরুতর আহত হয়। তাদেরকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তাৎক্ষনিক ভাবে আহতদের নাম পরিচয় পাওয়া যায়নি।

টঙ্গী রেলওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ ছোটন শর্মা জানান, টঙ্গীতে ট্রেনের সাথে ড্রাম ট্রাক ও বালুর ট্রাকের সংঘর্ষ হয়েছে। পরে ট্রেনের ধাক্কায় ড্রাম ট্রাক উল্টে গিয়ে পাশে একটি অটো রিকশার উপর গিয়ে পড়ে যায়। এতে অটোরিকশা চালকসহ দুইজন আহত হয়। গুরুতর আহত অবস্থায় তাদের উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে কর্তব্যরত চিকিৎসক নবীনকে মৃত ঘোষণা করেন। তিনি আরো বলেন, ট্রেন দুর্ঘটনার পর থেকে রাত পৌনে ১টা পর্যন্ত ঢাকার সঙ্গে আপ লাইনে রেল চলাচল বন্ধ থাকে। পরে রেকার দিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত ট্রাকটি সরিয়ে নিলে রেল চলাচল স্বাভাবিক হয়। এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে তিনি জানান।


আরও খবর