Logo
আজঃ বুধবার ২৪ জুলাই 20২৪
শিরোনাম

দীর্ঘদিন পর পর্দায় ফেরা নিয়ে যা বললেন শাবনূর

প্রকাশিত:সোমবার ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২৪ জুলাই 20২৪ | ১৫৯জন দেখেছেন

Image

দীর্ঘদিনের বিরতির পর ফের নতুন সিনেমা শুরু করতে যাচ্ছেন ঢাকাই চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় নায়িকা শাবনূর। নির্মাতা আরাফাত হোসাইনের ‘রঙ্গনা’ সিনেমার মাধ্যমে পর্দায় হাজির হতে যাচ্ছেন নন্দিত এই তারকা। শনিবার সিনেমাটির মহরত অনুষ্ঠিত হয় রাজধানীর ঢাকা ক্লাবে। সেখানে উপস্থিত সাংবাদিকদের সঙ্গে পর্দায় ফেরা ও কাজ নিয়ে কথা বলেন তিনি।

দীর্ঘদিনের বিরতি কাটিয়ে নিজ ভুবনে ফেরা প্রসঙ্গে শাবনূর জানান, আসলে শিল্পীদের কামব্যাক বলতে কোনো কিছু নেই। এরপরই কাজে ফেরার ব্যাপারে তিনি বলেন, ‘রঙ্গনা’ সিনেমার জন্যই আমার দেশে আসা। এই সিনেমার গল্প ও গান খুব টেনে এনেছে আমাকে। এতে দর্শকরা ভিন্ন ঘরানার একটি চরিত্রে দেখতে পাবেন আমাকে। আপাতত গল্প বা এর বেশি বলা যাবে না। তবে সময় উপযোগী একটি গল্প।

অভিনেত্রী বলেন, ১০ বছর আগে আমাদের সিনেমার যে ধরনের দর্শক ছিলেন, এখন কিন্তু তা নেই। এখন আরেক ধরনের দর্শক। সবকিছু বিবেচনা করে বর্তমান প্রেক্ষাপট মাথায় রেখে তৈরি হয়েছে ‘রঙ্গনা’র গল্পটি। এসময়ের দর্শকরা এ ধরনের গল্পই পছন্দ করেন। ক্যামেরার সামনে আসতে খুব বেশিদিন লাগবে না। এখন এর জন্যই প্রস্তুতি নিচ্ছি।

সামনে নতুন নতুন আরও সিনেমা নিয়ে কাজ করে যেতে চান জানিয়ে শাবনূর বলেন, এখানেই থেমে থাকব না। পরপর কাজ করব আমি। চেষ্টা করব একটির পর আরেকটি কাজ করার। একটি কথা বলতে চাই, কামব্যাক বলতে কিছু নেই। শিল্পীদের কখনো মরণ হয় না। শিল্পীরা আজীবন কাজের মাধ্যমে বেঁচে থাকে। এজন্য আমি আমার এই ফেরাকে কামব্যাক বলতে চাই না।


আরও খবর



ডিসি বদল হচ্ছে ১৫ জেলায়,চলতি মাসেই প্রজ্ঞাপন : জনপ্রশাসনমন্ত্রী

প্রকাশিত:রবিবার ১৪ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২৪ জুলাই 20২৪ | ৮৯জন দেখেছেন

Image



 নিউজ ডেস্ক:



মাঠ প্রশাসনের জেলা প্রশাসক (ডিসি) পদে পরিবর্তন আনতে যাচ্ছে সরকার। চলতি মাসেই যে কোনো সময় নতুন ডিসি নিয়োগের প্রজ্ঞাপন জারি করবে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। 



কমপক্ষে ১৫ জেলায় ডিসি পরিবর্তন হবে বলে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ ও জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে। ডিসি পরিবর্তনের পরপরই শুরু হবে বিসিএস ২৮ ব্যাচের ডিসি হওয়ার ফিট লিস্টের কার্যক্রম।



এ নিয়ে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট বিভাগ। জানা গেছে, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর নিয়মিত বদলির কার্যক্রম হিসেবেই নতুন ডিসি নিয়োগ করতে যাচ্ছে সরকার।



 ইতোমধ্যে গত মাসে পুলিশের উচ্চ পর্যায়ে বড় রদবদল করা হয়েছে। যদিও কয়েক মাস ধরেই ডিসি পদে রদবদলের আলোচনা চলছিল।


তবে উপজেলা নির্বাচন আর জুনের বার্ষিক হিসাব সমাপ্তির জন্য বিষয়টি আটকে ছিল।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, মাঠ প্রশাসনের ডিসি পদে বর্তমানে তিনটি ব্যাচের কর্মকর্তারা কাজ করছেন। 



৬৪ জেলার মধ্যে ২৪ ব্যাচের ২৩ জন, ২৫ ব্যাচের ১৯ জন এবং ২৭ ব্যাচের ২২ জন কর্মকর্তা রয়েছেন। সাধারণত ডিসি পদে দুই বছর মাঠে রাখা হয়।


তবে কারও কাজ সন্তোষজনক না হলে নির্ধারিত সময়ের আগেও পরিবর্তন করা হয়। ইতোমধ্যে ২৪ ব্যাচের বেশির ভাগ কর্মকর্তাকে মাঠ প্রশাসন থেকে সরিয়ে অন্যত্র দায়িত্ব দেওয়ার সময় হয়েছে। তবে একাধিক সূত্র জানিয়েছেন, ২৪ ব্যাচের সবাইকে বদলি করা হবে না। 



২৫ ব্যাচেরও কয়েকজন ডিসিকে বদলি করা হতে পারে বলে জানা গেছে। ডিসি নিয়োগের ক্ষেত্রে খুবই গোপনীয়তা রক্ষা করে সার্বিক কার্যক্রম এগিয়ে রেখেছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।



নতুন ডিসি হিসেবে কাদের নাম চূড়ান্ত করা হয়েছে সে তালিকা অনেকটাই প্রস্তুত করেছে। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের একাধিক সূত্র জানান, নতুন তালিকায় ২৭ ব্যাচের কর্মকর্তাদের নাম বেশি রয়েছে। মন্ত্রণালয়ের এক দায়িত্বশীল কর্মকর্তা জানান, সরকার মাঠ প্রশাসনে সৎ, দক্ষ কর্মকর্তা নিয়োগ দিতে চায়। 



পাশপাশি অনেক কর্মকর্তা নানা কারণে বঞ্চিত হয়েছেন কিংবা জাতীয় নির্বাচনের আগে ইসির নির্দেশনায় মাঠ থেকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। এমন কর্মকর্তাদের নামও নতুন তালিকায় রয়েছে।



 ডিসি পরিবর্তন বিষয়ে জনপ্রশাসনমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘মাঠে দুই বছর হয়ে গেলে ডিসি পদে আমরা পরিবর্তন করি। সিনিয়রদের পর্যায়ক্রমে বদলি করা হয়। একই সঙ্গে যথাযথ দায়িত্ব পালন করতে না পারলে, কোনো বড় অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থাও নেওয়া হয়। 



’ তিনি বলেন, এখন ডিসি হিসেবে যারা আছেন তাদের মধ্যে ২৪ ব্যাচের প্রমোশন হবে। চলতি মাসেই কয়েকটি জেলায় নতুন ডিসি নিয়োগ দেওয়া হবে বলে তিনি জানান।


একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র বাংলাদেশ প্রতিদিনকে নিশ্চিত করেছেন, ডিসি পরিবর্তন আসছে ১৫ জেলায়। এখন পর্যন্ত সেভাবেই তালিকা তৈরি করা হয়েছে। শেষ মুহূর্তে প্রয়োজনে আরও এক বা দুটি জেলা বাড়তেও পারে। 



ডিসি রদবদলের পর ২৮ ব্যাচের ডিসি হওয়ার ফিট লিস্টের কার্যক্রম শুরু করবে মন্ত্রণালয়। সূত্রগুলো জানান, ডিসি নিয়োগের ক্ষেত্রে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় খুবই গোপনীয়তা রক্ষা করে। 



প্রজ্ঞাপন জারির আগ পর্যন্ত এ-সংক্রান্ত নিয়োগ তালিকা সময়ে সময়ে বদলেও যায়। আবার প্রজ্ঞাপন জারির পরও বাদ পড়েন কোনো কোনো কর্মকর্তা।


মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের একাধিক সূত্র জানান, নতুন নিয়োগের পাশাপাশি ২৫ ও ২৭ ব্যাচের দায়িত্ব পালন করা ডিসিদের কিছু জেলাও পরিবর্তন আসতে পারে। অনেক কর্মকর্তাকে পরিবর্তন করে গুরুত্বপূর্ণ বা বড় জেলায় দায়িত্ব দিতে পারে সরকার। 



যেসব কর্মকর্তা ইতোমধ্যে দক্ষতা দেখিয়েছেন তাদের আরও উৎসাহিত করতে চায় সরকার। কয়েক দিন ধরেই কর্মকর্তাদের মধ্যে এ নিয়ে আলোচনা রয়েছে। বিশেষ করে ২৭ ও ২৮ ব্যাচের কর্মকর্তারা জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে খোঁজখবর রাখার চেষ্টা করছেন।



 ২৭ ব্যাচের কর্মকর্তারা আশায় আছেন কে হচ্ছেন ডিসি আর ২৮ ব্যাচ আশায় আছেন ফিট লিস্টের।



আরও খবর



প্রধানমন্ত্রীর সাবেক ব্যক্তিগত সহকারীর ব্যাংক হিসাব জব্দ

প্রকাশিত:সোমবার ১৫ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২৪ জুলাই 20২৪ | ৭৩জন দেখেছেন

Image

চ্যানেল ২৩ ডেস্ক:


প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাবেক ব্যক্তিগত সহকারী জাহাঙ্গীর আলম, তার স্ত্রী কামরুন নাহার ও তাদের স্বার্থসংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের ব্যাংক হিসাব জব্দ করার নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। 



সেই সঙ্গে তাদের হিসাব খোলার ফরমসহ যাবতীয় তথ্য আগামী পাঁচ দিনের মধ্যে পাঠাতে বলা হয়েছে।


রোববার (১৪ জুলাই) কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বাংলাদেশ ফিন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ) সব ব্যাংকে এ-সংক্রান্ত নির্দেশনা পাঠিয়েছে।


নির্দেশনায় বলা হয়, ব্যাংক/ আর্থিক প্রতিষ্ঠানে উল্লিখিত ব্যক্তিবর্গ ও তাদের মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানের নামে কোনো হিসাব থাকলে সেসব হিসাবের লেনদেন মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ আইন, ২০১২–এর ২৩ (১) (গ) ধারার আওতায় ৩০ দিনের জন্য স্থগিত রাখার নির্দেশনা দেওয়া হলো।


সাম্প্রতিক চীন সফর নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গতকাল সংবাদ সম্মেলন করেন। সেখানে দুর্নীতির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার প্রসঙ্গে তিনি নিজের বাসার সাবেক এক কর্মীর অর্থসম্পদের বিষয়টি সামনে আনেন।


প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমার বাসায় কাজ করেছে, পিয়ন ছিল সে, এখন ৪০০ কোটি টাকার মালিক। হেলিকপ্টার ছাড়া চলে না। বাস্তব কথা। কী করে বানাল এত টাকা? জানতে পেরেছি, পরেই ব্যবস্থা নিয়েছি।


জাহাঙ্গীর আলম প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত সহকারী হিসেবে টানা দুই মেয়াদের পাশাপাশি গত মেয়াদেও কিছুদিন দায়িত্ব পালন করেছেন। পরবর্তীকালে বিভিন্ন অভিযোগ ওঠায় তাঁকে ওই দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়। 



জাহাঙ্গীর আলম নোয়াখালীর চাটখিল উপজেলার খিলপাড়া ইউনিয়নের নাহারখিল গ্রামের বাসিন্দা। তিনি এর আগে নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ছিলেন।




আরও খবর



ঢাবির হলে হলে ছাত্রলীগের তল্লাশি, শিক্ষার্থীদের মারধরের অভিযোগ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২১ জুলাই ২০২৪ | ২৯জন দেখেছেন

Image

চ্যানেল 23 ডেস্ক :



কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনে অংশ নেওয়ায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) বিভিন্ন হলে মারধর ও হলছাড়া করার অভিযোগ উঠেছে ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে। 



সোমবার (১৫ জুলাই) রাত ১০টার পর থেকে বিজয় একাত্তর হল, স্যার এ এফ রহমান হল, মাস্টারদা সূর্যসেন হলসহ বেশ কয়েকটি হলে ছাত্রলীগের তল্লাশি শুরু হয়। শিক্ষার্থীদের মোবাইল ফোন চেক, কক্ষে কক্ষে গিয়ে তল্লাশি, মারধর এবং মারধর করে হলছাড়া করে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। 



এদিকে, হলের ‘অবস্থা খারাপ’ হবে ভেবে অনেকে নিরাপদ আশ্রয়ে রয়েছেন বলে জানা গেছে। বিজয় একাত্তর হলের একাধিক শিক্ষার্থী গণমাধ্যমকে জানান, হলের দিকে গেলে গেটে ছাত্রলীগ নেতা–কর্মীরা মারধর শুরু করে। 


স্যার এ এফ রহমান হলের এক শিক্ষার্থী গণমাধ্যমকে জানান, হলের ৮ জন শিক্ষার্থীকে বেধড়ক মারধর করেছেন ছাত্রলীগের পদপ্রত্যাশীরা। তিনজনকে হল থেকে বের করে দেওয়া হয়েছে। 



মারধরের শিকার ভুক্তভোগীরা হলেন—২০২০–২১ শিক্ষাবর্ষের আব্দুল বাসিত, শাখাওয়াত হোসেন সাকু, লিমন খান রানা, মোর্শেদ ইসলাম। ২০১৬–১৭ শিক্ষাবর্ষের ফারুক হোসেন ও তাওহীদ ইসলাম, ২০১৭–১৮ শিক্ষাবর্ষের হাসিবুল ইসলাম হাবিব, আনোয়ার হোসেন এবং ২০১৮–১৯ শিক্ষাবর্ষের হেদায়েত হোসেন। 



প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, শাখাওয়াত ও বাসিতকে খুব বেশি মারা হয়েছে। শাখাওয়াতকে তাঁর কক্ষে গিয়ে মারা হয়েছে। আর বাসিত হাসপাতালে যাচ্ছিলেন। তখন তাঁর ফোন তল্লাশি করে বেধড়ক মারধর করা হয়। লিমন, শাখাওয়াত ও মোর্শেদকে হল থেকে বের করে দেওয়া হয়েছে। আনোয়ার হোসেনের বেড, বই–খাতা বাইরে ফেলা দেওয়া হয়েছে। 


এ বিষয়ে অবহিত করা হলে হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. রফিক শাহরিয়ার বলেন, ‘খোঁজ নিচ্ছি, বিষয়টি জানা নেই।’ 


বিজয় একাত্তর ও স্যার এ এফ রহমান হলই শুধু নয়, একই ধরনের ঘটনা মাস্টারদা সূর্যসেন হলেও ঘটেছে বলে জানা গেছে। 



একাধিক হলে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ছাত্রলীগের পদপ্রত্যাশীরা হল গেটে অবস্থান করছেন। যারা হলে ঢুকছেন তাঁদের ফেসবুক অ্যাকাউন্ট চেক করা হচ্ছে। কোটা সংস্কার আন্দোলনের সঙ্গে যুক্ত কিনা যাচাই করে দেখা হচ্ছে। 

 

বিভিন্ন হলে শিক্ষার্থীদের এভাবে মারধর করা হচ্ছে, বিষয়টি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. এ এস এম মাকসুদ কামালকে জানালে রাত ১১টা ৪০ মিনিটে তিনি বিজয় একাত্তর হলে উপস্থিত হন। এ সময় উপ–উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ড. সীতেশ চন্দ্রও উপস্থিত ছিলেন। 


উপাচার্যকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পরা বিজয় একাত্তর হলে শিক্ষার্থীকে মারধরের ভিডিও দেখান সাধারণ শিক্ষার্থীরা। সেখানে উপস্থিত বিজয় একাত্তর হলের প্রাধ্যক্ষ ও ছাত্রলীগের নেতা–কর্মীরা সেটি অস্বীকার করেন। 



তখন উপাচার্য হলের প্রাধ্যক্ষ ও আবাসিক শিক্ষকদের সতর্ক থাকার নির্দেশনা দিয়ে ঘটনাস্থল ত্যাগ করেন।




আরও খবর



শিক্ষার্থীদের শান্তিপূর্ণ আন্দোলনে বলপ্রয়োগের তীব্র নিন্দা টিআইবি'র

প্রকাশিত:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৩ জুলাই ২০২৪ | ৫৭জন দেখেছেন

Image

চ্যানেল 23 ডেস্ক:


সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর সরকারি দলের ছাত্রসংগঠন ও বহিরাগত সন্ত্রাসীদের হামলায় তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)। 



 মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে শিক্ষার্থীদের শান্তিপূর্ণ আন্দোলনে হামলাকারীদের চিহ্নিত করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি এবং চলমান সংকটের শান্তিপূর্ণ ও সংবিধানসম্মত সমাধান নিশ্চিতের দাবি জানিয়েছে সংস্থাটি। 


বিবৃতিতে টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইতেখারুজ্জামান বলেন, ‘গত প্রায় দুই সপ্তাহ ধরে চলা সারাদেশের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কারের দাবিতে শিক্ষার্থীদের একটি বড় অংশ শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি পালন করছিল। 



শিক্ষার্থীদের মত প্রকাশ এবং সভা-সমাবেশ করার সাংবিধানিক অধিকার পালনের এই আন্দোলনে প্রাথমিকভাবে সরকার ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সহিষ্ণু আচরণ আমাদের মনে আশার সঞ্চার করেছিল।



 অথচ,ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর ন্যক্কারজনক সহিংস হামলা করা হলো। গণমাধ্যমসহ অন্যান্য নির্ভরযোগ্য সূত্রে পাওয়া সংবাদে দেখা গেলো, হামলায় প্রকাশ্যে নারী শিক্ষার্থীদেরকেও কাপুরুষোচিতভাবে নির্বিচারে, বিপজ্জনকভাবে আঘাত করা হলো, অসম্মান করা হলো। 



গণমাধ্যম সূত্রে জানা যাচ্ছে, আজ রংপুরে আন্দোলনকারী এক শিক্ষার্থীর মর্মান্তিক মৃত্যুও হয়েছে। আমরা এই হামলা ও মৃত্যুর ঘটনায় আতঙ্কিত, ক্ষুব্ধ, হতাশ। হামলাকারী সন্ত্রাসীদের দল-মত নির্বিশেষে চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনার দাবি জানাই।’ 


টিআইবির বিবৃতিতে আরও বলা হয়, যে দেশের গৌরবময় ভাষা আন্দোলন ও স্বাধীনতা অর্জনসহ সকল অধিকারভিত্তিক ইতিবাচক অর্জনে শিক্ষার্থীদের স্বর্ণোজ্জ্বল ভূমিকা, সেই বাংলাদেশের ঐতিহ্য বিবেচনায় নিয়ে শিক্ষার্থীরা শান্তিপূর্ণ আন্দোলনের ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে পারবে। 



সরকারের উচিত হবে, আদালতের কাঁধে বন্দুক রেখে শিক্ষার্থীদের যৌক্তিক দাবিকে অস্বীকার না করা; বরং কোটা সংস্কার আন্দোলনের যৌক্তিক, যুগোপযোগী, শান্তিপূর্ণ ও সংবিধানসম্মত ইতিবাচক সমাধানের উদ্যোগ নেওয়া। 



টিআইবি প্রত্যাশা করে, সরকার কোনো অবস্থাতেই সংঘাত উসকে দিয়ে শিক্ষার্থীদের যৌক্তিক আন্দোলন দমনের পথে হাঁটবে না, বরং শিক্ষার্থীদের শান্তিপূর্ণ আন্দোলন উপযোগী পরিবেশ নিশ্চিত করার সাংবিধানিক দায়িত্ব পালন করবে। টিআইবি মনে করে, ক্ষমতাসীন দলের নেতৃবৃন্দসহ রাষ্ট্রের উচ্চপর্যায় থেকে আন্দোলনকারীদের ব্যাপারে নেতিবাচক ধারণা যেমন পরিহার করতে হবে, তেমনি আন্দোলনকারীদেরও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও দেশাত্মবোধ নিয়ে যৌক্তিক দাবি আদায়ের প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখতে হবে। 



কোনোভাবেই মহান মুক্তিযুদ্ধ এবং জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধাদের যেন অবমাননা না হয়, তা নিশ্চিত করতে হবে।’



টিআইবির বিবৃতিতে আরও বলা হয়, গতকাল দিনভর ও রাতের গভীরে দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের ওপর অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত সন্ত্রাসীরা যেভাবে পাক হানাদার বাহিনীর মতো আক্রমণ করেছে তা কাপুরুষতা এবং তা প্রতিরোধ করতে না পারা সংশ্লিষ্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রশাসনিক ব্যর্থতা উল্লেখ করে টিআইবির নির্বাহী পরিচালক বলেন, ‘ঢাকা, চট্টগ্রাম, জাহাঙ্গীরনগর, রাজশাহী, খুলনা, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের বিভিন্ন উচ্চ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সরকারসমর্থিত ছাত্র সংগঠন ও বহিরাগত সন্ত্রাসীর আক্রমণ ঠেকানোর দায় সরকার ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীও এড়াতে পারে না।



 আমরা উদ্বেগের সঙ্গে লক্ষ করলাম, সন্ত্রাসীরা প্রথম আক্রমণকারী হলেও সংঘাতের দায় আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের ওপর চাপানোর অশুভ প্রচেষ্টা যেমন চলছে, তেমনি হামলা ঠেকাতে পুরো রাষ্ট্রযন্ত্রই ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে। বিশেষ করে, সরকারের একাধিক মন্ত্রী প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে সহিংসতা উসকে দেওয়ার ঘটনায় লিপ্ত হয়েছেন, যার নিন্দার পর্যাপ্ত ভাষা নেই।



 স্বাধীনতার ৫৩ বছর পর রাতের আঁধারে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে বহিরাগত সন্ত্রাসীদের আক্রমণে আমরা স্তম্ভিত, হতবাক। আমরা এমন সন্ত্রাসের পুনরাবৃত্তি দেখতে চাই না। অনতিবিলম্বে তা বন্ধ করতে হবে এবং সহিংসতায় জড়িত সকলকে নির্মোহ ও স্বার্থের দ্বন্দ্বমুক্তভাবে চিহ্নিত করে দৃষ্টান্তমূলক বিচার নিশ্চিত করতে হবে।’



কোটা সংস্কার আন্দোলনের যৌক্তিক, শান্তিপূর্ণ ও সংবিধানসম্মত দ্রুততম সমাধানের লক্ষে সরকার, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীসহ সব পক্ষকেই সংযত ও যৌক্তিক আচরণ করার আহ্বান জানানোর পাশাপাশি অবিলম্বে হামলার ঘটনায় আহতদের সুচিকিৎসা এবং শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তাসহ শান্তিপূর্ণ আন্দোলনের পরিবেশ যে কোনো উপায়ে নিশ্চিত করতে সরকার ও সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রতি আহ্বান জানিয়েছে টিআইবি।



আরও খবর



ডোনাল্ড ট্রাম্পের ওপর হামলার নিন্দা জানালেন প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:সোমবার ১৫ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২৪ জুলাই 20২৪ | ৪০জন দেখেছেন

Image



সদরুল আইনঃ


নির্বাচনি সমাবেশে সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে হত্যা চেষ্টার নিন্দা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ‘এই ঘটনাটি খুবই দুঃখজনক।’



গতকাল রোববার (১৪ জুলাই) প্রধানমন্ত্রীর চীন সফর আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ মন্তব্য করেন। 



প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, আমরা অবশ্যই তার উপর এই ধরনের হামলার নিন্দা জানাচ্ছি। আমেরিকা সবসময় তাদের গণতন্ত্র নিয়ে গর্ববোধ করে। 


তাহলে আমেরিকার মতো সভ্য ও গণতান্ত্রিক দেশে কীভাবে একজন প্রেসিডেন্ট প্রার্থী ও আমেরিকার সাবেক প্রেসিডেন্টের ওপর এমন হামলা হলো, প্রশ্ন করেন প্রধানমন্ত্রী।



শেখ হাসিনা বলেন, ট্রাম্প আক্রমণ থেকে অল্পের জন্য বেঁচে গেছেন। তবে তিনি তার কানে আঘাত পেয়েছেন।


ডেমোক্রেটিক পার্টি হামলার জন্য সরকারকে দায়ী করেনি। তবে, প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন হামলার নিন্দা করেছেন।বাংলাদেশের ক্ষেত্রে বিষয়গুলো ভিন্ন হবে।



২০০৪ সালের ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার কথা উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, তৎকালীন বিএনপি-জামায়াত সরকার গ্রেনেড হামলার জন্য তাকে দায়ী করেছিল। 


পরবর্তীতে তদন্তে তারেক রহমান ও তৎকালীন স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবরসহ বিএনপির কয়েকজন শীর্ষ নেতার সম্পৃক্ততা পাওয়া যায়। তারা মামলায় দোষী সাব্যস্ত হন।



সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প গত শনিবার পেনসিলভেনিয়ায় নির্বাচনি প্রচারণা সমাবেশে বক্তব্য দেওয়ার সময় কানে গুলিবিদ্ধ হন। এরপর আহত অবস্থায় তিনি মঞ্চ ত্যাগ করেন।



আরও খবর