Logo
আজঃ শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

৬৮০০ জনবল বহাল রাখার দাবিতে বিএডিসির কর্মচারীদের মানববন্ধন

প্রকাশিত:রবিবার ১৬ জুলাই ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ২৪৬জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিনিধি : কৃষি উৎপাদন প্রবৃদ্ধির স্বার্থে, বিএডিসি’কে রক্ষা করতে হবে“ এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে ৬৮০০ জনবল বহাল রাখার দাবিতে বিএডিসি শ্রমিক কর্মচারী লীগের আয়োজনে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

রবিবার (১৬ জুলাই) বিএডিসি কৃষি ভবন সংলগ্ন প্রধান সড়কে বিএডিসি শ্রমিক কর্মচারী লীগের সভাপতি মো. মশিউরি রহমানের নেতৃত্বে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

এসময় মানবন্ধনে উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন এর সংস্থাপন বিভাগের উপ-পরিচালক মো. পলাশ হোসেন, বিএডিসি শ্রমিক কর্মচারী লীগের সাধারণ সম্পাদক  মো. আলী হায়দার ফয়সাল , কেন্দ্রীয় মহিলা শ্রমিক লীগ এর শ্রমিক কল্যান বিষয়ক সম্পাদক সাবিনা সুলতানা, সিবিআই এর যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক  মো. রফিকুল ইসলাম সোহান, বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন এর অর্থ বিভাগের কম্পিউটার অপারেটর মো. মহাসিন লষ্কর প্রমূখ।


মানববন্ধনে বিএডিসি শ্রমিক কর্মচারী লীগের সভাপতি মো. মশিউরি রহমান বলেন,  ১৯৯৮ সালে ‘কৃষি কমিশন’ কর্তৃক সুপারিশের প্রেক্ষিতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রীপরিষদের অনুমোদনক্রমে ৬৮০০ জনবল সম্বলিত বিএডিসির গেজেট প্রজ্ঞাপন ১৯.১০.১৯৯৮ তারিখে মহামান্য রাষ্ট্রপতি অনুমোদক্রমে জারি হয়।

দেশের কৃষি আধুনিকীকরণ তথা মানসম্পন্ন বীজের চাহিদা বৃদ্ধি, নন ইউরিয়া সার সরবরাহ এবং আধুনিক সেচ সুবিধা বৃদ্ধির প্রেক্ষাপটে ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ সরকার কর্তৃক গঠিত ড. এ এম এম শওকত আলীর নেতৃত্বাধীন কমিটি ২০১০ সালে বিএডিসির জনবল ১০১০০-তে উন্নীতকরণের সুপারিশ করেন। উক্ত সুপারিশ এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা ৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮ তারিখে বিএডিসির পুনর্গঠনের ঘোষণার পরিপ্রেক্ষিতে জনপ্রশাসন কেআইবি কনভেনশন হলে মন্ত্রণালয়ের স্মারক নং-০৫.১৫৭,০২৮,০১,০২,০২০,০৯ (২য় খন্ড), ২৪৬ তারিখঃ ২৯ নভেম্বর ২০১৮ মোতাবেক বিএডিসির জনবল কাঠামো ৯৩৫৫-তে পদ সৃজনের সম্মতি জ্ঞাপন করেন।

২০২১ সালে নভেম্বরে কৃষি মন্ত্রণালয় বিএডিসির ৬৮০০ কর্মচারীর অবসরোত্তর পেনশনের প্রস্তাবনা অর্থ মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করলে অর্থ মন্ত্রণালয় জনবল ৩০১৭ জনে সংকোচনের নির্দেশনা জারি করে, যা মন্ত্রী পরিষদের অনুমোদনক্রমে মহামান্য রাষ্ট্রপতির অনুমোদনে জারীকৃত গেজেট প্রজ্ঞাপনের সরাসরি লঙ্গন।

অনুমোদিত জনবল কাঠামো জনবল ৬৮০০ এর স্থলে ৩০১৭ জনে (অর্ধেক এর কম) নামিয়ে আনলে বিএডিসি’র কর্মক্ষেত্র পঙ্গু হয়ে যাবে, দেশের কৃষিখাত নাজুক হয়ে পড়বে। তাই কৃষির প্রাণ বিএডিসিকে বাঁচাতে সরকারের সংশ্লিষ্টদের ভূমিকা রাখার অনুরোধ জানাচ্ছি।


বিএডিসি শ্রমিক কর্মচারী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. আলী হায়দার ফয়সাল বলেন, অনুমোদিত জনবল কাঠামো জনবল ৬৮০০ এর স্থলে ৩০১৭ জনে (অর্ধেক এর কম) নামিয়ে আনলে নানান জটিলতা সম্মুখীন হবো।

মহা ব্যবস্থাপক/ প্রধান প্রকৌশলী পর্যায়ে ৬টি পদ, মাঠ পর্যায়ের ১২৯ টি অফিস প্রধানের পদসহ মোট ৩৭৮৩ টি পদ কম সৃজন করার ফলে প্রায় ১৩৫ টি অফিস বন্ধ হয়ে যাবে। এতে করে বীজ উৎপাদন, সার সংরক্ষণ ও বিতরণ এবং সেচ কার্যক্রম তথা ফসল উৎপাদন ব্যাহত হবে। ফলে দেশের খাদ্য সয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনের ধারাবাহিকতা ব্যাহত হবে।

সদস্য পরিচালকের ৪টি পদের (বিএডিসি আইন ২০১৮ কর্তৃক অনুমোদিত) বিপরীতে ২টি পদে সম্মতি প্রদান করায় বোর্ড অব ডাইরেক্টরস অসম্পূর্ণ থাকবে। এতে করে বোর্ডের কার্যক্রম পরিচালনা ও পরিকল্পনা মারাত্মকভাবে বিঘ্নিত হবে এবং ইতোপূর্বে গৃহীত সিদ্ধান্তসমূহ অবৈধ হিসেবে গণ্য হবে।

বিএডিসি মাত্র ১৩০০ মে. টন বীজ উৎপাদনের মাধ্যমে শুরু করে ক্রমবর্ধমান চাহিদার প্রেক্ষিতে বর্তমানে ১৬৫০০০ মে. টন বীজ উৎপাদন করছে। এসডিজি লক্ষ্যমাত্রা ২০২৯-২০৩০ অনুযায়ী ২,০৫০০০ মে. টন এবং ডেল্টা প্ল্যান অনুযায়ী ২০৪০-২০৪১ সালে ৩,০০,০০০ মে. টন বীজ উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ব্যাহত হবে।

এছাড়াও সমন্বিত ক্ষুদ্রসেচ নীতিমালা ২০১৭ অনুযায়ী বিএডিসিতে চলমান সেচযন্ত্রের লাইসেন্স প্রদান, বিদ্যুতায়নের ছাড়পত্র প্রদান এবং সেচস্কিম অনুমোদন ব্যাহত হবে।

ইতোমধ্যে জারিকৃত নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির আলোকে প্রায় ৬০০ পদে নিয়োগ কার্যক্রম চুড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে যা এই আদেশের প্রেক্ষিতে নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হওয়ার ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধকতা তৈরি করেছে।

প্রয়োজনীয় জনবলের অভাবে চলমান প্রকল্প বাস্তবায়ন এবং নতুন উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহণ বাধাগ্রস্থ হবে। এতে করে কৃষিবান্ধব মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা সরকারের অভিলক্ষ্য “ফসলের উৎপাদন ও উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি, শস্য বহুমুখীকরণ, পুষ্টিসমৃদ্ধ নিরাপদ ফসল উৎপাদন ও বিপণন ব্যবস্থা আধুনিকায়নের মাধ্যমে কৃষিকে লাভজনক করা এবং জনসাধারণের পুষ্টি ও খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করা” রূপকল্প ব্যাহত হবে।

কেন্দ্রীয় মহিলা শ্রমিক লীগ এর শ্রমিক কল্যান বিষয়ক সম্পাদক সাবিনা সুলতানা  বলেন, অনুমোদিত জনবল কাঠামো ৬৮০০ হতে ৩০১৭ তে সংকোচিত করা হলে আসন্ন জাতীয় নির্বাচনের প্রাক্কালে কৃষির উপরে এধরণের হটকারী সিদ্ধান্ত আওয়ামী লীগ সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুন্নসহ দেশের মানুষের খাদ্য নিরাপত্তা কার্যক্রমকে ব্যাহত করবে।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত ক্ষুধা ও দারিদ্রমুক্ত এবং খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে কৃষি ও কৃষকের অন্যতম নির্ভরযোগ্য প্রতিষ্ঠান বিএডিসিকে রক্ষার্থে ১. মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা কর্তৃক অনুমোদিত ৬৮০০ জনবল ভূতাপেক্ষভাবে অনুমোদন; ২. বিএডিসিতে পেনশন স্কিম চালুকরণ; ৩. জনপ্রশাসন কর্তৃক স্মারক নং-০৫.১৫৭.০২৮.০১.০২.০২০.০৯ (২য় খন্ড)-২৪৬ তারিখঃ ২৯ নভেম্বর ২০১৮ মোতাবেক সুপারিশকৃত ৯৩৫৫ জনবল কাঠামোর বিষয়ে অর্থ মন্ত্রণালয়ের সম্মতি জ্ঞাপনে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। তাই মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর এই বিষয় হস্তক্ষেপ কামণা করছি।


আরও খবর



আগামী রমজানে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে থাকবে : বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী

প্রকাশিত:সোমবার ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৫৪জন দেখেছেন

Image

বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আহসানুল ইসলাম টিটু জানিয়েছেন, রমজানে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ, বাজারে নিরবিচ্ছন্ন পণ্য সরবরাহ, বাজার মনিটরিসহ সরকার নানামুখী পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। আশা করা যায়, সরকারের এই পদক্ষেপগুলো বাস্তবায়নের ফলে আগামী রমজানে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে থাকবে।

তিনি বলেন, বাজারে নিরবিচ্ছন্ন পণ্য সরবরাহ করা গেলে কেউ আর কারসাজি ও মজুতদারি করে দ্রব্যমূল্য বাড়াতে পারবে না। তখন পণ্যমূল্য একটা যৌক্তিক পর্যায়ে থাকবে। দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে সরকার এ ব্যবস্থাটি নিশ্চিত করতে চাচ্ছে। এ ছাড়া আসন্ন রমজান উপলক্ষে সরকার টিসিবি’র মাধ্যমে এক কোটি প্রান্তিক পরিবারকে চাল, ডাল, তেল, খেজুরসহ ৫ ধরণের পণ্য সরবরাহ করবে। এতেও সাধারণ মানুষের মধ্যে কিছুটা স্বস্তি ফিরে আসবে।

সরকারি দলের অপর সদস্য আনোয়ার হোসেন খানের তারকা চিহ্নিত এক প্রশ্নের জবাবে বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী বলেন, ভোক্তা-স্বার্থ সংরক্ষণ ও ভোক্তা অধিকার বিরোধী কাজ প্রতিরোধকল্পে জাতীয় ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর কর্তৃক দেশব্যাপী নিয়মিত বাজার মনিটরিং করা হয়ে থাকে। চলতি ২০২৩-২৪ অর্থবছরে ৫ হাজার ৩৭৪টি বাজার তদারকি কার্যক্রম পরিচালনার মাধ্যমে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইনের অধীন বিভিন্ন অপরাধে ১১ হাজার ৬৮৫টি প্রতিষ্ঠানকে ৬ কোটি ৭৬ লাখ ৪০ হাজার টাকা জরিমানা আরোপ ও আদায় করা হয়েছে।


আরও খবর



সঙ্গীকে বলা ঠিক নয় যেসব কথা

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১০জন দেখেছেন

Image

সম্পর্কে সুন্দর রাখতে সততা, স্বচ্ছতা বজায় রাখা দরকার। এগুলো সম্পর্ককে আরও মজবুত করে তোলে। পরস্পরের প্রতি নির্ভরশীলতা, বিশ্বাসযোগ্যতা বাড়ায়। তবে কখনও কখনও কোনো কোনো সত্য সম্পর্কে দুরত্ব তৈরি করে বলেই মনে করছেন থেরাপিস্টরা। যেমন-

প্রাক্তনের সঙ্গে তুলনা: কথায় কথায় প্রাক্তনের বিষয়ে কথা বলা বা তুলনা আপনার বর্তমান সঙ্গীর আত্মবিশ্বাসকে ক্ষুন্ন করতে পারে। পুরনো সেই স্মৃতিগুলো নিজের কাছেই রাখুন। আপনার রোমান্টিক ইতিহাসের প্রতিটি দিক খুব বেশি প্রকাশের প্রয়োজন নেই। 

অতীতে বিশ্বাস হারিয়ে ফেলার ঘটনা : আগে কী হয়েছিল, সেসব নিয়ে বেশি কথা না বলাই ভালো। যতক্ষণ না বিষয়টি প্রাসঙ্গিক হয়ে ওঠে ততক্ষণ পর্যন্ত আগ বাড়িয়ে এসব নিয়ে কথা বলবেন না। মনে রাখবেন, সন্দেহ সম্পর্কে অস্বস্তি তৈরি করতে পারে। আপনি যদি অতীতে কোনও কারণে সম্পর্কে ঠকে থাকেন তাহলে সেটাকে শিক্ষা হিসাবে গ্রহণ করুন।

চেহারা নিয়ে অপ্রয়োজনীয় সমালোচনা: সঙ্গীর চেহারা বা শারীরিক গঠন যাই হোক তা নিয়ে অন্যদের সঙ্গে তুলনা করবেন না। এ নিয়ে অযৌক্তিক সমালোচনা করাও ঠিক নয়। ওজন, বয়স, বা ব্যক্তিগত সাজসজ্জার অভ্যাস সম্পর্কে মন্তব্য করার আগে সচেতন থাকুন।

পরিবারের ঘনিষ্ঠ সদস্যদের সম্পর্কে নেতিবাচক মতামত: সঙ্গীর পরিবারের ঘনিষ্ঠ সদস্যদের সম্পর্কে কখনও নেতিবাচক কথা বলবেন না, সেটা যতই সত্যি হোক না কেন। এতে দুটো মানুষের মধ্যে দূরত্ব তৈরি হতে পারে।

এসব ছাড়াও সম্পর্কের ভবিষ্যৎ নিয়ে অতিরিক্ত চিন্তা করবেন না। এতে সম্পর্কের জটিলতা বাড়ে। পাশাপাশি নিজের বন্ধুদের ব্যক্তিগত বিষয় সঙ্গীকে জানাবেন না। এতে পরবর্তী সময়ে আপনি সমস্যায় পড়তে পারেন। 


আরও খবর



টস জিতে বোলিংয়ে বরিশাল

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৮৪জন দেখেছেন

Image

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (বিপিএল) চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের বিপক্ষে মাঠে নামছে ফরচুন বরিশাল। মঙ্গলবার (৬ ফেব্রুয়ারি) মিরপুর শেরে বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস জিতে চট্টগ্রামকে ব্যাটিংয়ে পাঠিয়েছেন বরিশালের অধিনায়ক তামিম ইকবাল।

জয় দিয়ে এবারের বিপিএল শুরু করেছিল বরিশাল। মাঝখানে ছন্দ পতন হলেও শেষ ম্যাচে জয়ে ফিরেছে তামিমের দল। ৬ ম্যাচে ৩ জয়ে ৬ পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট টেবিলের পাঁচে আছে বরিশাল।

অন্যদিকে ভালো অবস্থানে আছে চট্টগ্রাম। কাগজে-কলমে পিছিয়ে থাকলেও মাঠের খেলায় বেশ ছন্দে রয়েছে বন্দর নগরীর দলটি। যদিও সবশেষ ম্যাচে হার নিয়ে মাঠ ছাড়ে দলটি। ৬ ম্যাচে ৪ জয়ে ৮ পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট টেবিলের তিনে আছে চট্টগ্রাম।

ফরচুন বরিশাল একাদশ: তামিম ইকবাল (অধিনায়ক), আহমেদ শেহজাদ, মেহেদী হাসান মিরাজ, সৌম্য সরকার, মুশফিকুর রহিম, শোয়েব মালিক, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন, তাইজুল ইসলাম, মোহাম্মদ ইমরান ও আব্বাস আফ্রিদি।

চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স একাদশ: জশ ব্রাউন, তানজিদ হাসান তামিম, সৈকত আলী, শাহাদাত হোসেন, নাজিবুল্লাহ জাদরান, শুভাগত হোম (অধিনায়ক), টম ব্রুস, নিহাদুজ্জামান, শহিদুল ইসলাম, বিলাল খান ও আল-আমিন হোসেন।


আরও খবর

আইপিএল শুরুর তারিখ নির্ধারণ

বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




কোটা খালি রেখেই শেষ হলো হজ নিবন্ধন

প্রকাশিত:বুধবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৫৮জন দেখেছেন

Image

চার দফা সময় বাড়ানোর পর শেষ হয়েছে এ বছরের হজ নিবন্ধন। মঙ্গলবার রাত ১১টা পর্যন্ত সরকারি ও বেসরকারিভাবে নিবন্ধন করেছেন ৮৩ হাজার ১৫৫ হজযাত্রী।

ধর্ম মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটের তথ্য অনুযায়ী, নিবন্ধন শেষে এখনো কোটা খালি রয়েছে ৪৪ হাজার ৪৩টি। এ বছর বাংলাদেশের জন্য এক লাখ ২৭ হাজার ১৯৮টি কোটা নির্ধারণ করে দেয় সৌদি আরব। এর মধ্যে সরকারিভাবে হজে যেতে নিবন্ধন করেছেন চার হাজার ২৬০ জন। বেসরকারিভাবে নিবন্ধন করেছেন ৭৮ হাজার ৮৯৫ জন। সবমিলিয়ে মোট নিবন্ধন করেছেন ৮৩ হাজার ১৫৫ জন। বাকি ৪৪ হাজার ৪৩টি কোটা ফেরত যাবে।

তবে ধর্ম মন্ত্রণালয় বলছে, শেষদিনে অনেকে নিবন্ধন করেছেন। কিন্তু তাদের পেমেন্ট পেন্ডিং (অপেক্ষমাণ) রয়েছে। এ সংখ্যা যোগ করলে আরও হাজার দুয়েক কমবে। তারপরও ৪০ হাজারের মতো কোটা সৌদি আরবকে ফেরত দেওয়া হবে।

এবার হজের নিবন্ধন শুরু হয় ২০২৩ সালের ১৫ নভেম্বর, যা ১০ ডিসেম্বর শেষ হওয়ার কথা ছিল। প্রত্যাশিত সাড়া না মেলায় প্রথম দফায় সময় বাড়ানো হয় ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত। এরপর দ্বিতীয় দফায় ১৮ জানুয়ারি পর্যন্ত নিবন্ধনের সময় বাড়ানো হয়। তৃতীয় দফায় ২৫ জানুয়ারি থেকে ১ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সময় বাড়ায় ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়। এতেও হজ নিবন্ধনে কাঙ্ক্ষিত সাড়া না মেলায় শেষ দফায় ৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত হজ নিবন্ধনের সময় বাড়ানো হয়।


আরও খবর

হাফেজ বশির আলজেরিয়ার পর ইরানে প্রথম

বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




টঙ্গীতে ট্রেন-ট্রাকে সংঘর্ষ : অটোচালক নিহত

প্রকাশিত:সোমবার ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৩২জন দেখেছেন

Image

ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা কুড়িগ্রাম গামী আন্তঃনগর কুড়িগ্রাম এক্সপ্রেস ট্রেনের সাথে টঙ্গীতে সিটি করপোরেশনের ময়লা বহনকারী ড্রাম ট্রাকের সংঘর্ষ হয়েছে। এঘটনায় এক অটোরিকশা চালা নিহত হয়েছে।

রোববার (১১ জানুয়ারি) রাত ১১টার দিকে ঢাকা-ময়মনসিংহ রেলসড়কের মধুমিতা রেলক্রসিং এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ঘটনাস্থলে থাকা এক অটোরিকশা চালকসহ দুইজন আহত হয়েছেন। ঘটনার পর থেকে রাত পৌনে ১টা পর্যন্ত ঢাকার সঙ্গে আপলাইনে রেলচলাচল বন্ধ থাকে। পরে রেকার দিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত ট্রাকটি সরিয়ে নিলে রেল চলাচল স্বাভাবিক হয়। নিহত অটো রিকশা চালক নবীন (১৮) নেত্রকোনার পূর্বধলা থানা ধলা গ্রামের দুদু মিয়ার ছেলে।

রেলওয়ে পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, রেললাইনের পাশে সিটি করপোরেশনের একটি ময়লার ট্রাক ও বালুর ট্রাক পার্কিং করে রাখা ছিল। রাত ১১টার দিকে ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা কুড়িগ্রাম এক্সপ্রেস ট্রেনটি মধুমিতা রেলক্রসিং পার হচ্ছিল। এ সময় ট্রেনের ইঞ্জিনের সাথে দাঁড়িয়ে থাকা ময়লার ট্রাকের ধাক্কা লাগলে ময়লার ট্রাক ও পাশে থাকা বালুর ট্রাক দুমড়ে মুচড়ে যায়। পরে ময়লার ড্রাম ট্রাকের নিচে একটি অটোরিকশা চাপা পড়লে অটোরিকশা চালকসহ দুইজন গুরুতর আহত হয়। তাদেরকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তাৎক্ষনিক ভাবে আহতদের নাম পরিচয় পাওয়া যায়নি।

টঙ্গী রেলওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ ছোটন শর্মা জানান, টঙ্গীতে ট্রেনের সাথে ড্রাম ট্রাক ও বালুর ট্রাকের সংঘর্ষ হয়েছে। পরে ট্রেনের ধাক্কায় ড্রাম ট্রাক উল্টে গিয়ে পাশে একটি অটো রিকশার উপর গিয়ে পড়ে যায়। এতে অটোরিকশা চালকসহ দুইজন আহত হয়। গুরুতর আহত অবস্থায় তাদের উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে কর্তব্যরত চিকিৎসক নবীনকে মৃত ঘোষণা করেন। তিনি আরো বলেন, ট্রেন দুর্ঘটনার পর থেকে রাত পৌনে ১টা পর্যন্ত ঢাকার সঙ্গে আপ লাইনে রেল চলাচল বন্ধ থাকে। পরে রেকার দিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত ট্রাকটি সরিয়ে নিলে রেল চলাচল স্বাভাবিক হয়। এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে তিনি জানান।


আরও খবর